kalerkantho


বেতন ও বোনাস বাকি

পিপিপির ডায়ালিসিস সেন্টার বন্ধের উপক্রম!

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



বেতন ও বোনাস না পাওয়ায় বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে জাতীয় ইউরোলজি ও কিডনি ইনস্টিটিউটে পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপে পরিচালিত কিডনি ডায়ালিসিস সেন্টারটি। একই সেন্টারের ঢাকা ও চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কেন্দ্রে মোট ৯৮ জন চিকিৎসক, নার্স-কর্মচারী বকেয়া বেতন ও বোনাসের দাবিতে গত কয়েক দিন ধরেই বিক্ষোভ ও প্রতিদিন কিছু সময় করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন। ঈদের আগে বেতন-বোনাস না পেলে কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ার মতো পরিস্থিতিও হতে পারে বলে তাঁরা জানিয়েছেন।

ঢাকার শেরেবাংলানগরে জাতীয় ইউরোলজি ও কিডনি ইনস্টিটিউটের পিপিপির ডায়ালিসিস সেন্টারের কর্তব্যরত ডা. শাওলীন বলেন, ‘ঈদ ঘনিয়ে এলেও এখন পর্যন্ত আমাদের কারোই বেতন-বোনাসের দেখা নেই। স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে ধরলে তারা ভারতীয় মালিকের অজুহাত দেখায়। ফলে আমরা এক অনিশ্চিত অবস্থার মধ্যে পড়েছি।’

এ বিষয়ে পিপিপির আওতায় পরিচালিত ওই সেন্টারের প্রাইভেট পার্টনার ভারতীয় প্রতিষ্ঠানের পক্ষে বাংলাদেশে কাজ করা স্যানডোর ডায়ালিসিস সার্ভিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক লে. কর্নেল (অব.) এম এ ছালাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমি বিষয়টি বারবার ভারতীয় মালিক রাজীব সিন্ধাকে জানালেও তিনি বকেয়া বেতন বা বোনাসের টাকা পরিশোধে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছেন না। আবার এখানে এই খাতে কোনো তহবিল নেই। সরকারের কাছে পাওনা কিস্তির টাকাও এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। তাই হঠাৎ করেই এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। যদিও ডায়ালিসিস বন্ধ হয়নি, আর হবেও না। আশা করি শিগগিরই এ অবস্থার অবসান হবে। আমি চেষ্টা করে যাচ্ছি পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার। কিন্তু ভারতীয় প্রতিষ্ঠানের মালিক যদি সময়মতো এই টাকা পরিশোধ করে দিত তবে এমন অবস্থায় পড়তে হতো না।’

এম এ ছালাম জানান, ঢাকা ও চট্টগ্রামে মোট এখন পর্যন্ত ৪৫টি ডায়ালিসিস মেসিন চলছে প্রতিদিন। আর মোট এক হাজার ৪০০ রোগী ঘুরে ঘুরে এই সেন্টার থেকে সেবা নেয়। প্রতিদিন একবার ডায়ালিসিস করতে সেন্টারে একজন রোগীকে দিতে হয় মাত্র ৪২০ টাকা। যা দিয়ে উন্নতমানের ডায়ালিসিস সেবা পাচ্ছে কিডনি বিকল রোগীরা।

 



মন্তব্য