kalerkantho


ঈদে সড়ক নিরাপত্তায় এক গুচ্ছ উদ্যোগ

ফেসবুক পেজে ট্রাফিক আপডেট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



পবিত্র ঈদুল আজহায় সড়ক নিরাপত্তা ও ঘরমুখো মানুষের সময়মতো বাড়ি ফেরা নিশ্চিত করতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ উদ্যোগ নিয়েছে র‌্যাব। ঈদে যানজটসংক্রান্ত ট্রাফিক আপডেট জানাবে র‌্যাবের ফেসবুক পেজ। র‌্যাবের দুই শতাধিক টহল ও রিজার্ভ টিমের উপস্থিতিতে যানবাহনের বেপরোয়া গতি ও যানজট নিয়ন্ত্রণ এবং ছোট গাড়ি, বাসের ছাদ ও ট্রাকে যাত্রী পরিবহন আটকাতে বসেছে হাইওয়ে চেকপোস্ট। মাদক পরিবহন ও জঙ্গি তৎপরতায় শুরু হয়েছে নজরদারি। যানজট নিয়ন্ত্রণের জন্য ঢাকার প্রবেশমুখে ২০টি ক্যাম্পসহ মেঘনা-গোমতী সেতু এলাকা ও গাজীপুরে বিশেষ র‌্যাব ক্যাম্প স্থাপন এবং শিমুলিয়া ও পাটুরিয়া ফেরিঘাটে বিশেষ টহলের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে কারওয়ান বাজারের র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়। র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ এসব উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন।

ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, ঈদে যানজটের তাত্ক্ষণিক অবস্থা জানানো হবে র‌্যাবের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে। সেখানে চার ঘণ্টা পর পর ট্রাফিক আপডেট দেওয়া হবে। অর্থাৎ কোন সড়কে যানজট আছে আর কোন সড়কে যানজট নেই তা জানা যাবে এই পেজের মাধ্যমে।

র‌্যাব মহাপরিচালক জানান, ঈদ সামনে রেখে দুই সপ্তাহের বিশেষ নিরাপত্তাব্যবস্থার মধ্যে সারা দেশে র‌্যাবের ২৪৫টি টহল টিম ও ৫৬টি রিজার্ভ টিম মোতায়েন করা হয়েছে। ঢাকার প্রবেশমুখে বসানো হয়েছে ২০টি বিশেষ ক্যাম্প। অননুমোদিত স্থানে যাতে পশুর হাট বসতে না পারে সেদিকে নজর দেওয়া হচ্ছে। সেই সঙ্গে এবারের ঈদে ছোট ছোট গাড়ি ও ট্রাকে করে কাউকে চলাচল করতে দেওয়া হবে না। মহাসড়কে দুর্ঘটনা রোধে ঈদ-পরবর্তী তিন দিন চেকপোস্ট থাকবে।

অনেক সময় ঈদের পর রাস্তা ফাঁকা থাকায় বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানো হয়। তখন রাস্তায় প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। এই পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এবার হাইওয়েতে র‌্যাব চেকপোস্ট বসানো হবে। কোনো গাড়ি যাতে আর বেপরোয়াভাবে চলতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখবে র‌্যাব। বিশেষ করে ২৩, ২৪ ও ২৫ আগস্ট র‌্যাব এ কাজটি করবে সড়কগুলোতে।

তল্লাশির ভয়ে বিপুলসংখ্যক গাড়ির মালিকরা রাস্তায় গাড়ি বের করছেন না কেন তা নিয়ে র‌্যাবের মহাপরিচালক বলেন, এর ফলে দুর্ঘটনা কমবে। এর পরও মানুষ নির্বিঘ্নে যাতায়াত করতে পারছে। কোথাও কোনো সমস্যা হচ্ছে না। এটি ভালো দিক। তবে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মেঘনা ও গোমতী সেতুর দুই পাশে ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে যেন যানজট নিয়ন্ত্রণ করা যায়। একই কারণে গাজীপুরের বেশ কয়েকটি পয়েন্টে ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। এ ছাড়া বিশেষ করে শিমুলিয়া ও পাটুরিয়া ফেরিঘাটের দুই প্রান্তেই র‌্যাবের টহল জোরদার করা হয়েছে। কোথাও যেন গাড়ি আটকে থাকতে না পারে সেটা নিশ্চিত করাই তাদের লক্ষ্য। আর এসব কাজের উদ্দেশ্য হলো দেশের মানুষ যেন সময়মতো বাড়ি ফিরে ঈদের আনন্দ পরিবারের সঙ্গে ভাগাভাগি করে নিতে পারে।

ব্রিফিংয়ে মাদক ও জঙ্গিবাদের বিষয়েও কথা বলেন র‌্যাবের মহাপরিচালক। এসব নিয়ে তিনি বলেন, ‘মাদক নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চলছে। এটি চলমান যুদ্ধ। মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা একটি চলমান প্রক্রিয়া। এর বাইরে কেউ জড়িত থাকা অস্বাভাবিক নয়। নতুন লোক ব্যবসা শুরু করতেই পারে। এতে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই। আমরা কাউকে ছাড় দিচ্ছি না।’

জঙ্গিবাদের বিষয়ে বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘আমরা যত কাজই করি না কেন জঙ্গিবাদ থেকে র‌্যাব কখনো চোখ সরাবে না। নতুন নতুন জঙ্গি সংগঠন যেগুলো আছে সেগুলো নজরদারিতে রাখা হয়েছে। নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। জঙ্গি সংগঠন কখন মাথাচাড়া দেবে সেই আশায় বসে থাকবে না র‌্যাব। র‌্যাবের জন্মই হয়েছে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ মোকাবেলার জন্য।’

এক প্রশ্নের জবাবে র‌্যাব মহাপরিচালক বলেন, ‘তথ্য-প্রযুক্তির অপার সম্ভাবনা থাকায় নতুন করে দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করতে চায় একটি গোষ্ঠী। আমরা সে সুযোগ দেব না। এ জন্য আমরা সাইবার ইউনিট গঠন করেছি। নিয়মিত মনিটর করা হচ্ছে যে দেশের সাইবার জগতে কী হচ্ছে। রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে তেমন কিছু পেলে সে যেই হোক না কেন আমরা তার বিরুদ্ধে অ্যাকশনে যাব।’

কক্সবাজারে একরামুল হক নিহতের তদন্তের বিষয়ে জানতে চাইলে বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘নির্বাহী তদন্তের আগে এ বিষয়ে মন্তব্য করা ঠিক হবে না।’

 



মন্তব্য