kalerkantho


হলি আর্টিজানে হামলা

দুই জঙ্গির পরোয়ানা তামিল প্রতিবেদন দাখিল হয়নি

এক জঙ্গিকে হাজির না করায় জেলারকে নোটিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার ঘটনায় করা মামলায় পলাতক দুই আসামির বিরুদ্ধে জারি করা গ্রেপ্তারি পরোয়ানার প্রতিবেদন দাখিল করেনি পুলিশ। তাই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা তামিলসংক্রান্ত প্রতিবেদনের জন্য আগামী ২৯ আগস্ট দিন ধার্য করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকার সন্ত্রাস দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান এ তারিখ ধার্য করেন।

এদিকে কারাগারে থাকা ছয় আসামির মধ্যে মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে রাজীব গান্ধীকে ট্রাইব্যুনালে হাজির না করায় জেলারকে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। গতকাল অন্য পাঁচ আসামি আসলাম হোসেন সরদার ওরফে রাশেদ ওরফে র‌্যাশ ওরফে আবু জাররা, আবদুস সবুর খান, রাকিবুল হাসান রিগেন, মো. মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান ও হাদিসুর রহমানকে হাজির করা হয়।

গত ৮ আগস্ট ট্রাইব্যুনাল আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেন। একই সঙ্গে পলাতক দুই আসামি শরিফুল ইসলাম খালেদ ও মামুনুর রশীদ রিপনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে তাদের গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন। অন্যথায় পরোয়ানা তামিলসংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে বলেন। পলাতক খালেদের বাড়ি রাজশাহীর বাগমারা থানার শ্রীপুর গ্রামে। আর রিপনের বাড়ি বগুড়ার নন্দীগ্রাম থানার শেখেরমাড়িয়া গ্রামে। বাগমারা ও নন্দীগ্রাম থানার ওসির প্রতি পরোয়ানা জারি করা হয়। তাদেরই প্রতিবেদন দিতে হবে।

গত ২৩ জুলাই এ মামলায় আট জীবিত জঙ্গিকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দেওয়া হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হাসনাত করিমের জঙ্গি হামলায় জড়িত থাকার বিষয়ে সংশ্লিষ্টতা না পাওয়ায় তাঁকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার সুপারিশ করেন চার্জশিটে। ৮ আগস্ট হাসনাত করিমকে মুক্তির নির্দেশ দেওয়া হয়।

২৪ জুলাই মামলাটি বিচারের জন্য সন্ত্রাস দমন ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তরের নির্দেশ দেন চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাইফুজ্জামান হিরো। ২৫ জুলাই নথি সন্ত্রাস দমন ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের ওসি হুমায়ুন কবির সন্ত্রাসবিরোধী আইন ২০০৯ (সংশোধনী ২০১৩)-এর ৬(২)/৭/৮/৯/১০/১২/১৩ ধারায় আসামিদের বিচারের ব্যবস্থা করতে এই চার্জশিট দেন।

অভিযুক্ত সবাই নব্য জেএমবির সক্রিয় সদস্য বলে চার্জশিটে বলা হয়। আটজনকে অভিযুক্ত করা হলেও হলি আর্টিজানের ঘটনার সঙ্গে ২১ জঙ্গির জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে চার্জশিটে উল্লেখ করা হয়। তাদের মধ্যে পাঁচজন ঘটনাস্থলেই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে নিহত হয়। অন্য আটজন জঙ্গিবিরোধী বিভিন্ন অভিযানে নিহত হয়।



মন্তব্য