kalerkantho


বছরের মাথায় বেহাল সড়ক

বরগুনার বেতাগী-পটুয়াখালী সড়ক যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে

বেতাগী (বরগুনা) প্রতিনিধি   

১৬ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



সংস্কারের এক বছরের মাথায় বরগুনার বেতাগী-পটুয়াখালী সড়ক যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়কটির বিভিন্ন স্থান খানাখন্দে ভরে গেছে। গত কয়েক দিনের ঘন বর্ষায় সড়কের গর্ত আরো ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। বেতাগী থেকে পটুয়াখালী যাতায়াতের জন্য বেতাগী বাসস্ট্যান্ড থেকে পায়রাগঞ্জ ফেরিঘাট পর্যন্ত ১৪ কিলোমিটার রাস্তার মধ্যে ছোট বড় হাজারো গর্ত রয়েছে। গাড়িচালকসহ সাধারণ মানুষ, স্কুলগামী শিক্ষার্থীসহ নারী-বৃদ্ধদের নানা ধরনের বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ২০১৭ সালে সড়কটি সংস্কারের জন্য সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর প্রায় ১০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়। ঠিকাদার ও প্রকৌশলীর যোগসাজশে নিম্নমানের উপকরণ দিয়ে সড়কের সংস্কারকাজ চলে। এ কারণে অল্প দিনেই সড়ক বেহাল হয়ে পড়েছে। বরগুনা সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের দেওয়া তথ্যানুযায়ী ৯ কোটি ৭২ লাখ ৭৬ হাজার টাকায় বরিশালের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ‘খান ইন্ডাস্ট্রিয়াল’কে সড়কের কাজের দায়িত্ব দেওয়া হয়। তারা নিম্নমানের পাথুরে খোয়া ও কাদা মিশ্রিত সিলিকা বালুর সঙ্গে লোকাল বালু মিশিয়ে সড়কের সংস্কারকাজ করে। এ কারণে সড়কে দ্রুত খানাখন্দ সৃষ্টি হয়েছে।

‘খান ইন্ডাস্ট্রিয়াল’ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহফুজ খান বলেন, পটুয়াখালী-বেতাগী সড়কের অর্ধেক অংশের কাজ মির্জাগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবু বকর সিদ্দিক ও বাকি অংশের কাজ বেতাগী পৌর মেয়র এ বি এম গোলাম কবিরকে সাব ঠিকাদার হিসেবে লিজ দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে তারা সড়কের তত্ত্বাবধান করছে। এ বিষয়ে সাব ঠিকাদার মির্জাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ‘অতিরিক্ত বর্ষণের কারণে দক্ষিণাঞ্চলের সড়কের বেহাল অবস্থা তৈরি হয়েছে। তবে সড়কের গর্তগুলো ভরাটের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

অন্যদিকে বেতাগী পৌর মেয়র এ বি এম গোলাম কবির বলেন, ‘আমার কাজের বেশির ভাগ অংশ এখনো অক্ষত আছে। তবে অতিবৃষ্টির কারণে যেসব স্থানে খানাখন্দ সৃষ্টি হয়েছে পৌরসভার অর্থায়নে সেগুলো সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের বরিশাল বিভাগীয় অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল আলম বলেন, ‘সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সড়কটি পর্যবেক্ষণ করবে। অভিযোগের সত্যতা পেলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

 



মন্তব্য