kalerkantho


চাকরির ভুয়া প্রস্তাবের লক্ষণ

২৩ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



চাকরির ভুয়া প্রস্তাবের লক্ষণ

প্রযুক্তির এ যুগে চাকরির বড় বাজার হয়ে উঠেছে ইন্টারনেট। ফলে স্বাভাবিকভাবেই চাকরিপ্রার্থীরা ইন্টারনেটে ঘাঁটাঘাঁটি করেন। আর বিপত্তিও ঘটে সেখানেই। প্রায় সময়ই ভুয়া প্রতিষ্ঠানের ‘কর্ম খালি আছে’ বিজ্ঞাপনের খপ্পরে পড়তে হয় প্রার্থীদের। এ বিড়ম্বনা থেকে মুক্তি পেতে কয়েকটি পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা—

বিস্তারিত তথ্য নেই

চাকরির প্রস্তাব ভুয়া হলে বিজ্ঞাপনে সাধারণত বিস্তারিত তথ্য থাকে না। চাকরি, কর্মী হিসেবে আপনার দায়িত্ব, প্রতিষ্ঠান এবং অন্যান্য বিষয় লেখা থাকবে না। অর্থাৎ ই-মেইল পড়ে পরিষ্কার ধারণা মিলবে না।

টাকা চাওয়া

যেকোনো কারণ দেখিয়ে টাকা চাওয়া, কোথাও টাকা জমা দেওয়ার কথা বলা, বিকাশ করা ইত্যাদি ভুয়া চাকরির প্রস্তাব বলে ধরে নিতে পারেন। নিরাপত্তাবিষয়ক কোনো জমার কথা বললেও বিস্তারিত খোঁজখবর না নিয়ে তাতে সাড়া দেওয়া উচিত হবে না।

স্পাম ফোল্ডারে যাবে

সাধারণত ভুয়া চাকরির প্রস্তাবের ই-মেইল আপনার অ্যাকাউন্টের ‘স্পাম ফোল্ডারে’ জমা পড়বে। কারণ হলো, এগুলো অসংখ্য মানুষের কাছে পাঠানো হয়। আবার স্পাম ফোল্ডারে না এলেই যে তা আসল, এমনটা ভাবারও কোনো কারণ নেই।

প্রেরক ‘অস্পষ্ট’

এসব ই-মেইল যে ঠিকানা থেকে আসে, তা বিভ্রান্তিকর। ই-মেইল অ্যাড্রেসে কম্পানি স্পষ্ট নয়। যেমন—আপনি দেখলেন সেখানে লেখা ‘এবিসি.কম’। তবে কোনো প্রতিষ্ঠিত কম্পানির সঠিক প্রস্তাব সাধারণত কোনো জি-মেইল, ইয়াহু মেইল বা হটমেইল থেকে আসার কথা নয়। তাদের নিজস্ব ডোমেইনের ই-মেইল থেকে পাঠানো হয়। তবে সব কম্পানির ক্ষেত্রেও তা খাটে না।

ঠিকানা, ভাষা

ই-মেইলের শেষে প্রতিষ্ঠানের যে ঠিকানা দেওয়া থাকে, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তা ভুল। আপনি যাচাই করে দেখে নিতে পারেন। এ ছাড়া এদের ই-মেইলে ভাষাগত দুর্বলতা চোখে পড়বে। চোখে পড়বে বানান ও ব্যাকরণগত ভুলও।

এর বাইরে

যদি সেখানে আপনার জন্ম তারিখ, জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর, ক্রেডিট কার্ডের নম্বর ইত্যাদি চায় তবে ভুয়া ধরে নিন। সত্যিকার প্রস্তাবে শুরুতেই এসব তথ্য চাওয়া হবে না। খুব বেশি হলে আপনার লেখাপড়া, অভিজ্ঞতা বা এসংক্রান্ত কোনো তথ্য চাইতে পারে।

টাইমস জবস অবরম্বনে সাকিব সিকান্দার

 

 



মন্তব্য