kalerkantho


ধর্ষণ মামলা রফার চেষ্টা

ইউপি চেয়ারম্যান সদস্য কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া   

১৬ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলায় একটি ধর্ষণ মামলা মীমাংসা করে দেওয়ার চেষ্টার অভিযোগে রায়নগর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ রিজু ও সদস্য মোস্তফা কামাল তোতাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গতকাল  বগুড়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২-এর বিচারক আব্দুর রহিম তাঁদের জেলে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে আদালত তাঁদের দুজনকে সশরীরে আদালতে হাজির হয়ে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন।

অন্যদিকে এ মামলায় শিবগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তার আদালতে দাখিল করা চূড়ান্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি আবেদন করেন বাদী। আদালত তাঁর আবেদন গ্রহণ করেছেন। এ ছাড়া মামলার মূল আসামি আইএফআইসি ব্যাংকে কর্মরত বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার গোচন সরদার পাড়ার ফয়েজ উদ্দিন মাস্টারের ছেলে সামছুর রহমানের (৩৩) বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

মামলা সূত্রে জানা যায়, বিয়ের প্রলোভন দিয়ে আসামি সামছুর রহমান স্বামী পরিত্যক্তা এক নারীকে ধর্ষণ করেন। ফলে ওই নারী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। পরে ওই নারীকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানালে তিনি বগুড়ার নারী শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২-এ একটি মামলা করেন। মামলা চলাকালে ওই নারী একটি পুত্রসন্তান জন্ম দেন।  এ ঘটনা তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে শিবগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন আদালত। তিনি ঘটনা তদন্ত করে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। তিনি তাঁর প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন যে রায়নগর ইউপি চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ রিজু ও সদস্য মোস্তফা কামাল তোতার উপস্থিতিতে বাদী ও আসামিদের আপস-মীমাংসা হয়েছে।



মন্তব্য