kalerkantho


কমলাপুরে টয়লেটে ভারতীয় নারীর সন্তান প্রসব

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ জুন, ২০১৮ ০০:০০



রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে থানার টয়লেটে ভারতীয় এক নারী সন্তান প্রসব করেছেন। সোমবার রাতে এ ঘটনার পর রেলওয়ে পুলিশ নবজাতকসহ প্রসূতিকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে। তারা হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন।

রেলওয়ে পুলিশ জানায়, সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে নারায়ণগঞ্জ থেকে একটি ট্রেন এসে থামে কমলাপুর রেলস্টেশনে। ওই ট্রেনের যাত্রী অন্তঃসত্ত্বা এক নারীকে নিয়ে রেলওয়ের স্টাফরা কমলাপুর রেলওয়ে থানায় যান। সেখানে যাওয়ার পরপরই ওই নারী টয়লেটে যাবেন বলে জানান। কিছুক্ষণ পর টয়লেটের ভেতরে নবজাতকের কান্নার শব্দ পাওয়া যায়। পরে থানা পুলিশ দ্রুত আশপাশের এলাকা থেকে কয়েকজন বয়স্ক মহিলাকে নিয়ে আসে। তাঁরা ওই নারী ও নবজাতককে শৌচাগার থেকে বের করে আনেন। পুলিশ তাদের মুগদা হাসপাতালে নিলে সেখান থেকে প্রসূতি ও নবজাতককে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। সে অনুযায়ী রাত ২টার দিকে উভয়কে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

কমলাপুর রেলওয়ে থানার ওসি ইয়াসিন ফারুক মজুমদার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ওই নারী নিজেকে ভারতীয় বলে পরিচয় দিয়েছেন। কথাও বলেন হিন্দি ভাষায়। নাম রোকসানা, বাবার নাম রসুল বলে জানান। কিন্তু ভারতের কোথায় তাঁর বাড়ি সে বিষয়ে সঠিক তথ্য দিতে পারছেন না। আরেকটু সুস্থ হলে তাঁর সঙ্গে কথা বলে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করা হবে। পুলিশের পক্ষ থেকেই তাঁর চিকিৎসার খরচ চালানো হচ্ছে।’

ওসি আরো জানান, রোকসানা নামের ওই নারী জানিয়েছেন যে বাংলাদেশের আবদুল নামের এক ব্যক্তি ভারতে ব্যবসা করেন। আবদুলের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। ঈদুল ফিতরের আগে আবদুল তাঁকে এ দেশে নিয়ে আসেন। একটি বড় কবরস্থানের পাশে একটি বাসায় তাঁকে রাখা হয়। আবদুল তিন দিন আগে তাঁকে নিয়ে নারায়ণগঞ্জে বোনের বাসায় বেড়াতে যান। সোমবার সেখান থেকে তাঁরা দুজন ট্রেনে চেপে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হন। পরে তাঁকে ট্রেনে একাকী ফেলে রেখে আবদুল পালিয়ে যান। এমনকি তাঁর পাসপোর্টও নিয়ে গেছেন আবদুল।



মন্তব্য