kalerkantho


কিশোরগঞ্জে স্কুলছাত্রীকে দল বেঁধে ধর্ষণ

গ্রেপ্তার ৩

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৩ জুন, ২০১৮ ০০:০০



কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় গত সোমবার রাতে প্রেমিকের নেতৃত্বে এক স্কুলছাত্রীকে দলবেঁধে ধর্ষণ করা হয়েছে।

এ অভিযোগে গতকাল মঙ্গলবার ভোরে র‌্যাব-১৪ কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের সদস্যরা প্রেমিক বাদশা মিয়াকে (২৫) গ্রেপ্তার করেছেন।

সে পাকুন্দিয়া উপজেলার নারান্দি ইউনিয়নের শালঙ্কা গ্রামের মৃত আব্দুল মোতালেবের ছেলে। পরে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তার সহযোগী একই গ্রামের মৃত সিরাজ উদ্দিনের ছেলে এরশাদ ও দুলাল মিয়ার ছেলে রুস্তমকে গ্রেপ্তার করা হয়।

নির্যাতিতা মেয়েটি কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণিতে পড়ে। তাকে গতকাল ভোরে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থা গুরুতর বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. রমজান মাহমুদ।

র‌্যাব সূত্র জানায়, মেয়েটির সঙ্গে বাদশা মিয়ার প্রেম ছিল। সোমবার সন্ধ্যায় ফোনে ঈদের কেনাকাটা করার কথা বলে তাকে বাড়ি থেকে সদর উপজেলার বিন্নাটি মোড়ে নিয়ে যায় বাদশা। পরে বাদশাসহ তার সাঙ্গোপাঙ্গরা কৌশলে মেয়েটিকে পাকুন্দিয়ার নারান্দি ইউনিয়নের ছোট আজলদি গ্রামের একটি কলাবাগানে নিয়ে দলবেঁধে রাতভর নির্যাতন করে। ভোরে তাকে ছেড়ে দেওয়া হলে অসুস্থ মেয়েটি স্থানীয় পুলেরঘাট বাজারে যায়। সেখানে বাজারের এক পাহারাদার মেয়েটিকে উদ্ধার করে সদর উপজেলার চৌদ্দশত ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে যায়। পরে তাকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়।

র‌্যাব-১৪ কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের কম্পানি অধিনায়ক এম শোভন খান বলেন, অভিযোগ পেয়ে মূল হোতা বাদশাসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যদের ধরতে অভিযান চলছে।

পাকুন্দিয়া থানার ওসি আজহারুল ইসলাম সরকার জানান, এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে বাদশাসহ পাঁচজনকে আসামি করে পাকুন্দিয়া থানায় একটি মামলা করেছেন। মামলার অন্য আসামি হলো নারান্দি ইউনিয়নের শালঙ্কা গ্রামের দুলাল মিয়ার ছেলে নাসিম এবং ছোট আজলদি গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে মো. মামুন।



মন্তব্য