kalerkantho


এনডিপির নিবন্ধন আবেদন নামঞ্জুর

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ মে, ২০১৮ ০০:০০



বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের শরিক ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এনডিপি) নিবন্ধনের আবেদন নামঞ্জুর করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। হাইকোর্টের দেওয়া নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে দলটির আবেদন যাচাই-বাছাই করে নির্বাচন কমিশন। কিন্তু রাজনৈতিক দল নিবন্ধন বিধিমালা অনুসরণ না করায় এবং ১৯৯৬ সালে অনুষ্ঠিত ষষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকে দলীয় কার্যক্রমের ধারাবাহিকতা না থাকায় দলটির নিবন্ধনের আবেদন মঞ্জুর করা হয়নি।

গতকাল সোমবার ইসির এ সিদ্ধান্ত জানিয়ে এনডিপির চেয়ারম্যানকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, দাখিল করা কাগজপত্র পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ১৯৯১ সালে এনডিপির প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত সংসদ সদস্য পরবর্তী সময়ে অন্য নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলে যোগ দিয়ে ওই রাজনৈতিক দল থেকে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। এরপর ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে এনডিপি নামে কোনো দল জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেনি। এনডিপির দাখিল করা গঠনতন্ত্র যাচাই করে ইসি দেখতে পেয়েছে, গঠনতন্ত্রটি ২০০৮ সালে ছাপানো হয়েছে। দলটি এর আগে কোনো গঠনতন্ত্র দাখিল করেনি। এ ছাড়া ইসির পর্যবেক্ষণ, আবেদনকারী দলটি ১৯৯১ সালের এনডিপি নামীয় দলটি কি না তা নিশ্চিত নয় ইসি।

জানা যায়, এনডিপির নিবন্ধনের বিষয়টি বিবেচনা করতে গত ১২ মার্চ নির্বাচন কমিশনকে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। এনডিপি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কেন অংশ নিতে পারবে না মর্মে জারি করা রুল চূড়ান্ত নিষ্পত্তি করে এ রায় ঘোষণা করেন বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি জাফর আহমেদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ। এর আগে ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন করে এনডিপি। কিন্তু কমিশন সে আবেদন নাকচ করলে দলটির চেয়ারম্যান খন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা ইসির ওই সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন।

নির্বাচন কমিশনের তথ্যানুসারে ১৯৯১ সালের পঞ্চম সংসদ নির্বাচনে এনডিপির ২০ জন প্রার্থী বাঘ প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছিলেন। এর মধ্যে একজন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।



মন্তব্য