kalerkantho


এনজিওকর্মী বিল্লাল হত্যা পরিকল্পিত

কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ মে, ২০১৮ ০০:০০



বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা আশার কর্মকর্তা বিল্লাল হোসেনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় সংঘবদ্ধ একটি চক্র জড়িত। পুলিশের পক্ষ থেকে এমনটা ধারণা করা হলেও গতকাল মঙ্গলবার রাত ৮টা পর্যন্ত জড়িতদের কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। দায়ের হওয়া মামলায় কারো নাম উল্লেখ না করলেও দুজনকে সন্দেহের কথা বলা হয়েছে। তারা নেপথ্যে থেকে কলকাঠি নাড়তে পারে।

জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের খিলগাঁও জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) নাদিয়া জুঁই কালের কণ্ঠকে বলেন, বিল্লাল পরিকল্পিত হত্যার শিকার হয়ে থাকতে পারে। তবে কে বা কারা এ ঘটনায় জড়িত—তা এখনো জানা যায়নি। সন্দেহভাজন কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

পুলিশ ও আশার কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিল্লাল হোসেন আশার খিলগাঁও শাখায় লোন কালেকশনের দায়িত্বে ছিলেন। এ হত্যাকাণ্ডে একটি সংঘবদ্ধ চক্র জড়িত থাকতে পারে। তারাই পরিকল্পিতভাবে তাঁকে হত্যা করেছে।

বিল্লাল হত্যার ঘটনায় আশার খিলগাঁও-১ শাখার ব্যবস্থাপক আফজাল হোসেন বাদী হয়ে সোমবার রাতে মামলা করেন। এ সময় খিলগাঁও থানায় পরিবারের লোকজনও উপস্থিত ছিল। আফজাল বলেন, শনিবার লোনের টাকা কালেকশন করতে বের হওয়ার পর থেকে বিল্লাল নিখোঁজ ছিলেন। পরদিন খিলগাঁও থানায় জিডি করা হয়। বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করেও তাঁকে পাওয়া যায়নি।

খিলগাঁও থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, বিল্লাল নিখোঁজ হওয়ার দুই দিন পর সোমবার সকালে খিলগাঁও এলাকার বালু নদী থেকে তাঁর হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করা হয়। তাঁকে পলিথিন দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যার পর হাত-পা বেঁধে পেট ছিদ্র করে শরীরে পাথর বেঁধে লাশ বালু নদীতে ফেলা হয়।



মন্তব্য