kalerkantho


ভারতীয় সেনাপ্রধানের দাবি

‘বাংলাদেশ থেকে’ অনুপ্রবেশে মদদ পাকিস্তান-চীনের

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



ভারতের সঙ্গে ‘ছায়াযুদ্ধে’র অংশ হিসেবে দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলকে অশান্ত করতে পাকিস্তান পরিকল্পিতভাবে ‘বাংলাদেশ থেকে’ অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ভারতীয় সেনাপ্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াত। তিনি দাবি করেন, এই কাজে পাকিস্তানকে সহযোগিতা করছে চীন। গত বুধবার নয়াদিল্লিতে উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সীমান্ত নিরাপত্তাবিষয়ক এক সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

তবে ‘বাংলাদেশ থেকে’ ভারতে অনুপ্রবেশের ওই দাবির সত্যতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ।

ভারতীয় সেনাপ্রধান এমন এক সময় ওই দাবি করেছেন, যখন উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামে নাগরিকত্ব যাচাই চলছে। সম্প্রতি প্রকাশিত জাতীয় নাগরিক নিবন্ধন তালিকায়

 (এনআরসি) বিপুলসংখ্যক বাংলা ভাষাভাষী মুসলমান বাদ পড়েছে এবং তারা বেশ উদ্বেগের মধ্যে আছে। অন্যদিকে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট আগামী ৩১ মার্চের মধ্যে পুরো তালিকা প্রকাশ করতে বলেছেন। একে অসম্ভব বলে অভিহিত করেছেন সরকারপক্ষের আইনজীবীরা।

গতকাল বৃহস্পতিবার টাইমস অব ইন্ডিয়া পত্রিকার অনলাইনে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতীয় সেনাপ্রধান বাংলাদেশ থেকে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে অবৈধ অনুপ্রবেশকে ‘পরিকল্পিত’ বলে উল্লেখ করেছেন। সরাসরি পাকিস্তান ও চীনের নাম উল্লেখ না করে ইঙ্গিতে সেনাপ্রধান বলেন, ‘আমার মনে হয়, ছায়াযুদ্ধের অংশ হিসেবেই সুপরিকল্পিতভাবে এমনটা করছে আমাদের পশ্চিম দিকের পড়শি দেশ এবং তাতে সহযোগিতা করছে উত্তর সীমান্তের দেশটি। ওই দুই দেশেরই লক্ষ্য আমাদের উত্তর-পূর্বাঞ্চলকে অস্থিতিশীল করে রাখা।’ ভারতীয় সেনাপ্রধান এই সমস্যা চিহ্নিত করে তাঁর যৌক্তিক সমাধান ও পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের ওপর জোর দিয়েছেন।

আসামের একাধিক জেলায় মুসলমানদের সংখ্যা বাড়ছে—সম্প্রতি গণমাধ্যমে প্রকাশিত এমন বেশ কিছু প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে ভারতীয় সেনাপ্রধান ওই রাজ্যে বদরুদ্দিন ওমরের অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফোরামের (এআইইউডিএফ) প্রভাব বাড়ার কথা বলেন। ভারতে ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) আসামে ১৯৮৪ সালে মাত্র দুটি আসন পাওয়ার কথা উল্লেখ করে জেনারেল বিপিন রাওয়াত বলেন, ‘এআইইউডিএফ নামে একটা দল আছে। খেয়াল করে দেখুন, বিজেপি বছরের পর বছর যে গতিতে বেড়েছে, ওরা আসামে তার চেয়েও দ্রুত বেড়েছে।’

ঢাকায় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাংলাদেশ থেকে ভারতের আসামে অবৈধ অনুপ্রবেশ ইস্যুর সত্যতা নিয়ে সন্দিহান বাংলাদেশ। এ দেশের বর্তমান যে আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতি, তা ছেড়ে কেউ আসামে থাকতে যেতে চাইবে এটি বিশ্বাসযোগ্য নয়। আসামে নাগরিকত্ব যাচাই ওই দেশটির অভ্যন্তরীণ বিষয় বলেও বাংলাদেশ মনে করে।



মন্তব্য