kalerkantho


২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা

পলাতক ৫ আসামির পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে খালাস দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার দুই মামলায় গতকাল বুধবার পলাতক পাঁচ আসামির পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করে তাদের খালাস চেয়েছেন রাষ্ট্র নিযুক্ত আইনজীবীরা। পলাতক বিএনপি নেতা হারিছ চৌধুরী ও মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ, হানিফ পরিবহনের মালিক মো. হানিফ এবং মো. খলিল ও আনিসুল মুরসালীনের পক্ষে এই শুনানি হয়।

গতকাল দ্বিতীয় দিনের মতো আসামিপক্ষে যুক্তিতর্ক শুনানি হয়। এর আগে সোমবার রাষ্ট্রপক্ষে যুক্তিতর্ক শুনানি শেষ হয়। ২৫ দিনের মতো রাষ্ট্রপক্ষ শুনানি করে।

ঢাকার সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১-এর বিশেষ এজলাসে বিচারক শাহেদ নুর উদ্দিন এই মামলার শুনানি গ্রহণ করছেন। তিনি আগামী ৯ জানুয়ারি পর্যন্ত শুনানি মুলতবি করেন। ওই দিন থেকে অন্য পলাতক আসামিদের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করা হবে।

পলাতক হারিছ চৌধুরীর পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপনকালে গতকাল রাষ্ট্র নিযুক্ত আইনজীবী আবু তৈয়ব বলেন, প্রথম অভিযোপত্রে হারিছ চৌধুরীর নাম ছিল না। অধিকতর তদন্তের পর তাঁর নাম এসেছে। রাজনৈতিকভাবে হয়রানির জন্য তাঁকে এ মামলায় জড়ানো হয়েছে। হারিছ চৌধুরী নির্দোষ দাবি করে তাঁর পক্ষে আইনজীবী খালাস চান।

এ ছাড়া কায়কোবাদের পক্ষে আইনজীবী আশরাফ-উল-আলম বলেন, কায়কোবাদ একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। কুমিল্লার মুরাদনগরের সাবেক সংসদ সদস্য, ব্যাপক জনপ্রিয় এই নেতা। তিনি পাঁচবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। এই আসামিকে পলাতক দেখিয়ে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তিনি তখন সংসদ সদস্য ছিলেন। রাজনৈতিকভাবে হয়রানি করার জন্য তাঁকে আসামি করা হয়েছে বলে দাবি করেন আইনজীবী।

কায়কোবাদের পক্ষে আইনজীবী আরো বলেন, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তদন্তকালে কোনো সাক্ষীর মুখ থেকে কায়কোবাদের নাম বের করতে পারেননি। অথচ বিচারের সময় রাষ্ট্রপক্ষের শিখিয়ে দেওয়া কয়েকজন সাক্ষীর সাক্ষ্যে তাঁর নাম এসেছে।

এর আগে হানিফ পরিবহনের মালিক মো. হানিফের পক্ষে যুক্তিতর্ক শুনানি শেষ করেন অ্যাডভোকেট চৈতন্য চন্দ্র হালদার। তিনিও হানিফের খালাস দাবি করেন।

এ ছাড়া পলাতক আসামি মো. খলিলের পক্ষে অ্যাডভোকেট খলিলুর রহমান খান এবং আনিসুল মুরসালীনের পক্ষে অ্যাডভোকেট সাখাওয়াৎ হোসেন যুক্তিতর্ক শুনানি শেষ করেন।



মন্তব্য