kalerkantho


রাজশাহীর সেই দুই ওসিকে বদলি

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



রাজশাহীর সেই দুই ওসিকে বদলি

রাজশাহীর গোদাগাড়ী ও চারঘাট থানার দুই ওসিকে অবশেষে বদলি করা হয়েছে। গত ৩১ ডিসেম্বর পুলিশ হেডকোয়ার্টার থেকে তাঁদের বদলির আদেশ দেওয়া হয়।

রাজশাহী রেঞ্জ পুলিশের উপমহাপরিদর্শক এম খুরশেদ আলম বলেন, ‘পুলিশ হেডকোয়ার্টার থেকে দুই ওসিকে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন ইউনিটে বদলি করা হয়েছে। তবে এর কারণ বলতে পারব না।’

পুলিশের একাধিক সূত্র বলছে, ওই দুজনের মধ্যে গোদাগাড়ী থানার ওসি হিপজুর আলম মুন্সির বিরুদ্ধে সরাসরি মাদক কারবারে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়া তাঁর বিরুদ্ধে স্থানীয় সাধারণ মানুষকে মাদকের মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি জেলা আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক সভায় তাঁর বিরুদ্ধে সরাসরি মাদক কারবারের অভিযোগ করেন গোদাগাড়ী পৌর মেয়র মনিরুল ইসলাম বাবু। এরপর তিনি লিখিতভাবে পুলিশ হেডকোয়ার্টারেও এ অভিযোগ করেন। বিষয়টি নিয়ে রাজশাহীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা) সুমিত চৌধুরী তদন্ত করেন। ওই তদন্তের ভিত্তিতে ওসি হিপজুর আলম মুন্সিকে শাস্তিমূলক বদলি করা হয়।

মাদক-সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অস্বীকার করে ওসি হিপজুর আলম মুন্সি বলেন, ‘আমি স্থানীয় রাজনীতির শিকার হয়েছি। পৌর মেয়রের সঙ্গে এমপির দ্বন্দ্ব রয়েছে। আমরা এমপিকে সাপোর্ট করতে গিয়ে মেয়রের প্রতিহিংসার শিকার হয়েছি।’

এদিকে চারঘাট থানার একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, ওই থানার ওসি নিবারণ চন্দ্র বর্মণ স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তির নামে মিথ্যা অস্ত্র মামলা দিয়ে অর্থ আদায় করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। পাশাপাশি তিনিও মাদক কারবারিদের পৃষ্ঠপোষক হিসেবে কাজ করতেন। পুলিশ গোপনে এসব তদন্ত করে সত্যতা পায়; যার ভিত্তিতে তাঁকে শাস্তিমূলক বদলির আদেশ দেওয়া হয়।

ওসি নিবারণ চন্দ্র বর্মণ দাবি করেন, ‘আমার বিরুদ্ধে এ ধরনের কোনো অভিযোগ নেই। তবে বদলি তো হতেই হবে। এটি নিয়মিত ব্যাপার।’



মন্তব্য