kalerkantho


সরকারি বিএম কলেজ

ছাত্রীনিবাসে ঢুকতে না পেরে বিপাকে শতাধিক ছাত্রী

বরিশাল অফিস   

২৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



গ্রীষ্মের ছুটি শেষে বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাস খোলার কথা রয়েছে আজ বৃহস্পতিবার। কিন্তু গতকাল বুধবার জেলার বাইরের শতাধিক ছাত্রী এক দিন আগে চলে আসে। কিন্তু তাদের ছাত্রীনিবাসের সামনের রাস্তায় দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলে নিরুপায় ছাত্রীদের কেউ কেউ মেসে, কেউ আবাসিক হোটেলে উঠতে বাধ্য হয়। এ নিয়ে ভুক্তভোগী ছাত্রীদের মাঝে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

ভুক্তভোগী ছাত্রীরা অভিযোগ করে বলেছে, বাড়ি দূরে হওয়ার কারণে তাদের এক দিন আগেই চলে আসতে হয়েছে। শুধু এবারই নয়, তারা নিয়মিত এক দিন আগেই ছাত্রীনিবাসে চলে আসে। কিন্তু এই প্রথম তাদের ছাত্রীনিবাসে উঠতে দেওয়া হয়নি। এ নিয়ে তারা বিপাকে পড়েছে।

তবে কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক স্বপন কুমার পাল বলেছেন, ‘ছাত্রীনিবাস বৃহস্পতিবার খুলবে। তাই দায়িত্বরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ছুটিতে। এ কারণে এক দিন আগে আসা ছাত্রীদের ছাত্রীনিবাসে উঠতে দেওয়া হয়নি। কারণ তাদের নিরাপত্তা দেওয়ার কেউ ছাত্রীনিবাসে নেই।’

গতকাল দুপুরে গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসের সামনে গিয়ে দেখা যায়, বরিশাল নগরের নতুনবাজার এলাকায় ছাত্রীনিবাসের সামনের সড়কে দাঁড়িয়ে আছে শতাধিক ছাত্রী। প্রত্যেকের হাতে কাপড়ের ব্যাগ ও খাবার। তারা বরিশাল জেলার বাইরের বাসিন্দা ও বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসের আবাসিক ছাত্রী। ছাত্রীনিবাস কর্তৃপক্ষ তাদের প্রবেশ করতে দেয়নি। এক দিন আগে আসায় তাদের রাস্তায় দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত তারা ছাত্রীনিবাসের সামনে অপেক্ষা করে। পরে নিরুপায় কিছু ছাত্রী চলে যায় সহপাঠীদের মেসে, কিছু ওঠে আবাসিক হোটেলে।

পিরোজপুর জেলার বাসিন্দা কলেজের সমাজকল্যাণ বিভাগের ছাত্রী মাহিয়া তাবাচ্ছুম অর্নিতা বলেন, ‘দুই বছর ধরে হলে থাকছি। আগে ছুটি শেষ হওয়ার দুই দিন পূর্বেও এসেছি। তখন ভেতরে প্রবেশে কোনো বাধা আসেনি। কিন্তু এবার আমাদের প্রবেশ না করতে দিয়ে রাস্তায় দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে। এখানে কোনো নিকটাত্মীয়ও নেই যে তাদের কাছে থাকব। তাই বাধ্য হয়ে আজকের রাত আবাসিক হোটেলে সিট নিয়ে থাকতে হবে।’  

বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসের সুপার অধ্যাপক মো. শাহ আলম বলেন, ‘আমরা নোটিশ দিয়েছিলাম, ২৮ ডিসেম্বর হল খোলা হবে। এর আগে কোনো ছাত্রী আসলে তাদের হলে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। এমন নির্দেশনা কলেজ অধ্যক্ষেরও ছিল। তাই কাউকে হলে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। বৃহস্পতিবার সকলকে হলে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে।’ 



মন্তব্য