kalerkantho


তরুণ শিল্পীদের চিত্রকর্ম প্রদর্শনী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



তরুণ শিল্পীদের চিত্রকর্ম প্রদর্শনী

শিল্পকলায় স্টুডিও থিয়েটার হলে গতকাল ‘মিলন মালা’ যাত্রাপালা মঞ্চস্থ করা হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

প্রত্যেক শিল্পীর ভাব প্রকাশের একটি নিজস্ব ভাষা রয়েছে। সেই ভাষা নতুন করে চিত্রপটে তুলে এনেছেন তরুণ শিল্পীরা।

তাঁদের ছবি নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার শুরু হয়েছে ‘২২তম বার্জার তরুণশিল্পী চিত্রকর্ম প্রতিযোগিতা’র প্রদর্শনী। এতে নিজের কর্মের স্বীকৃতি পেয়েছেন ছয় তরুণ শিল্পী।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের জয়নুল গ্যালারিতে গতকাল শুরু হওয়া এ উৎসবের দ্বার উন্মোচন করেন বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রূপালী চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন শিল্পী মনিরুল ইসলাম, শিল্পী সমরজিৎ রায় চৌধুরী, শিল্পী নিসার হোসেন, শিল্পী আবুল বারক আলভী, শিল্পী মনিরুজ্জামান, শিল্পী শিশির ভট্টাচার্য, শিল্পী নাসরিন বেগম প্রমুখ।

এবারের প্রতিযোগিতায় সেরা হয়েছেন ঊর্মি রায়। ‘এমব্রেস দ্য সোল থ্রি’ শিরোনামে তাঁর ছবিতে দেখা গেল এক নারীর শাঁখা-পলা পরা হাত। খোলা বইয়ের ওপর তার নিশ্চল হাতের পাশেই পড়ে আছে মরা তেলাপোকা। দ্বিতীয় হওয়া জেবা ফারিয়ার ‘পেইন্টিং ফ্রম থ্রি হুইলারস’ ছবিতে দেখা মিলল রিকশা চিত্রের। শুধু রিকশার পেছনেই নয়, পুরো চিত্রপটের জমিনজুড়েই ছিল রিকশাচিত্রের ছাপ।

তৃতীয় স্থান পাওয়া মং মং সুর ‘লাইফ অ্যান্ড ফিশারবোটস-৬’ ছবিতে দেখা মিলল জেলেদের জীবনযুদ্ধ। প্রদর্শনীতে পুরস্কারপ্রাপ্ত অন্য শিল্পীরা হলেন সুলতানা শারমীন, সুরাইয়া আক্তার ও নওশীন তারান্নুম। এবার আজীবন সম্মাননা দেওয়া হয় শিল্পী মাহমুদুল হককে।

নজরুলবিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন শুরু

সংকটকালে তিনি হয়ে ওঠেন প্রেরণার উৎস। সাম্প্রদায়িকতায় যখন আক্রান্ত হয় দেশ ও সমাজ তখন তার সৃষ্টিসম্ভার হয়ে ওঠে জাগরণের হাতিয়ার। এমন প্রেক্ষাপটে আবারও প্রাসঙ্গিকতা নিয়ে হাজির সাম্য, দ্রোহের কবি কাজী নজরুল ইসলাম। রাজধানীতে শুরু হলো জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামকে নিয়ে দুই দিনের আন্তর্জাতিক সম্মেলন। গতকাল উত্তরা ক্লাবের লোটাস লাউঞ্জে ‘একুশ শতকে নজরুল’ শীর্ষক দুই দিনের এই আন্তর্জাতিক সম্মেলন শুরু হয়। সম্মেলনের আয়োজক উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়। আয়োজনে সহযোগী হয়েছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ এবং ভারতের আসাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ।

শিল্পকলায় শুরু তিন দিনের যাত্রা উৎসব

শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার স্টুডিও থিয়েটার হলে গতকাল মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়েছে যাত্রা উৎসব। যাত্রাশিল্প উন্নয়ন নীতিমালা ২০১২ বাস্তবায়ন এবং যাত্রাদল নিবন্ধনে এ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। উৎসব চলবে ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত। উৎসবে প্রতিদিন বিকেল ৪টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত যাত্রা পরিবেশিত হবে।

উদ্বোধনী বিকেলে নেত্রকোনার ঝলমল নাট্যসংস্থার পরিবেশনায় ও রাজ্জাক গোসাইর পরিচালনায় পরিবেশিত হয় যাত্রাপালা ‘প্রেমের সমাধি তীরে’। বিকেল সোয়া ৫টায় নরসিংদীর ফরিদা নাট্যসংগঠনের পরিবেশনায় ও শহীদুল্লাহ বাহারের পরিচালনায় পরিবেশিত হয় যাত্রাপালা রূপবান। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় খুলনার বনানী অপেরার পরিবেশনায় ও সেলিম রেজার পরিচালনায় পরিবেশিত হয় যাত্রাপালা ‘মিলনমালা’।

আজ বুধবার বিকেল ৪টায় ঢাকার নিউ সোনার বাংলা অপেরা পরিবেশন করবে রাজু আহমেদের পরিচালনায় যাত্রাপালা ‘কাশেমমালা’। বিকেল সোয়া ৫টায় হবিগঞ্জের নবজাগরণ অপেরা পরিবেশন করবে সুনীল দাসের পরিচালনায় যাত্রাপালা ‘কলঙ্কিনী বঁধু’। ঢাকার নিউ লোকনাথ অপেরা পরিবেশন করবে প্রদীপ চক্রবর্তীর পরিচালনায় যাত্রাপালা ‘বাহারাম বাদশা’।


মন্তব্য