kalerkantho


মেয়াদ শেষেই কাজ গুটিয়ে নেবে অ্যাকর্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০



মেয়াদ শেষ হলেই বাংলাদেশে পোশাক কারখানার সংস্কার তদারকির কাজ গুটিয়ে নিতে সম্মত হয়েছে ইউরোপীয় ক্রেতাদের জোট অ্যাকর্ড। মালিকদের অনড় অবস্থান ও সরকারের আপত্তির মুখে এই সিদ্ধান্ত জানায় সংস্থাটি।

তবে সংস্থাটি প্রয়োজন মনে করলে সরকার ছয় মাস পর্যন্ত মেয়াদ বাড়াবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

গতকাল বৃহস্পতিবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অ্যাকর্ড প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনাসভা শেষে সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান মন্ত্রী। বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, শ্রম প্রতিমন্ত্রী মজিবুল হক চুন্নু, বাণিজ্যসচিব শুভাশীষ বসু, এফবিসিসিআই সভাপতি মো. সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, বিজিএমইএ সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান, বাংলাদেশে অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্সের সমন্বয়ক ও বিজিএমইএ সহসভাপতি মাহমুদ হাসান খান বাবুসহ অ্যাকর্ড স্টিয়ারিং কমিটি ও আইএলওর প্রতিনিধিরা বৈঠকে অংশ নেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, অ্যাকর্ড স্টিয়ারিং কমিটির সঙ্গে সরকার ও মালিকপক্ষের আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে। নির্ধারিত মেয়াদ শেষ হওয়ার পর অ্যাকর্ড তাদের বাংলাদেশ কার্যক্রম গুটিয়ে নিতে রাজি হয়েছে। অন্য ক্রেতা জোট অ্যালায়েন্স এরই মধ্যে চিঠি পাঠিয়ে সরকারকে জানিয়ে দিয়েছে, নির্ধারিত মেয়াদ শেষে তারা আর সংস্কার তদারকির কাজে থাকবে না। ফলে ২০১৮ সালের ৩১ মে পর্যন্ত এই দুই ক্রেতা জোটের বাংলাদেশের পোশাক খাতে সংস্কার তদারকির সময়সীমা ধার্য রয়েছে। পরে তারা সরকার গঠিত রেমিডিয়েশন কো-অর্ডিনেশন সেলের (আরসিসি) কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করবে। এই আরসিসির নেতৃত্বে থাকবে শ্রম মন্ত্রণালয়।

অন্যদের মধ্যে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও), মালিকপক্ষ এবং ব্র্যান্ডগুলোও থাকবে। তোফায়েল আরো বলেন, ‘আজকের বৈঠকে বাংলাদেশের শ্রমিক সংগঠনগুলোর কার্যকলাপ নিয়েও আলোচনা হয়েছে। কিছু শ্রমিক সংগঠন আছে, যারা বাংলাদেশে কিছু একটা ঘটার আগেই ওই তথ্য গোপনে দেশের বাইরে সরবরাহ করছে। এর ফলে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে।


মন্তব্য