kalerkantho


ক্যালরি নিয়ন্ত্রণের কৌশল

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



ক্যালরি নিয়ন্ত্রণের কৌশল

চা-কফিতে দুধ বা ক্রিম নয়

চা কিংবা কফির সঙ্গে দুধ মেশানোর অভ্যাস পরিত্যাগ করতে হবে। রং চায়ের তুলনায় কয়েক গুণ বেশি ক্যালরি দুধ চা থেকে আসে।

তাই রং চা কিংবা ব্ল্যাক কফি খাওয়াটাই ভালো। সম্ভব হলে চিনিও এড়িয়ে চলা যেতে পারে।

 

অলিভ অয়েলের অভ্যাস

রান্নায় ঘি, সয়াবিন তেল, ডালডা ইত্যাদির ব্যবহার খাবারে বাড়তি ক্যালরি যুক্ত করে। এ কারণে এসবের ব্যবহার ওজন বাড়ানোর পেছনে মুখ্য ভূমিকা পালন করে। এগুলোর বদলে বরং অলিভ অয়েল ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে হৃৎপিণ্ড ভালো থাকবে। তবে অলিভ অয়েল উচ্চ তাপমাত্রায় রান্না করলে পুষ্টিগুণ নষ্ট হয়, তাই সরাসরি ফুটন্ত অলিভ অয়েলে রান্না করা যাবে না এবং রান্নার সময় তাপ খুব বাড়ানো যাবে না।

 

ফাস্ট ফুডের ক্ষেত্রে

ফাস্ট ফুডে মেয়োনেজ বা চিজে প্রচুর ক্যালরি থাকে। তাই ফাস্ট ফুডের দোকানে বার্গার কিংবা স্যান্ডউইচ অর্ডার দেওয়ার সময় বলে দিতে হবে, মেয়োনেজ বা চিজ যেন না থাকে।

এ দুটি বাদ দিলে ফাস্ট ফুডের ক্ষতিকর প্রভাব অনেকটাই কমে যায়।

 

পানীয়

কোমল পানীয় শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। সেই সঙ্গে এগুলোতে ক্যালরির পরিমাণ অতিরিক্ত থাকে। তাই এগুলোর বদলে ফ্রেশ পানি খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তোলাই বুদ্ধিমানের লক্ষণ।

 

রান্নার আগেই চর্বি বাদ

বাড়িতে মাংস রান্না করার আগে অবশ্যই অতিরিক্ত চর্বি ফেলে দিতে হবে। রান্নার পর ফেললে খুব একটা লাভ হবে না। কারণ অতিরিক্ত চর্বি রান্নার সময় ঝোলের সঙ্গে মিশে যায়।

ওয়েবসাইট অবলম্বনে ওমর শরীফ পল্লব


মন্তব্য