kalerkantho


এক ঘণ্টার বৃষ্টিতে ফের ডুবল রাজধানী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



এক ঘণ্টার বৃষ্টিতে ফের ডুবল রাজধানী

গতকাল বৃষ্টিতে তলিয়ে যায় রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার রাস্তাঘাট। ছবিটি গতকাল ফার্মগেট এলাকা থেকে তোলা। ছবি : কালের কণ্ঠ

রাজধানীতে গতকাল বুধবার মাত্র ৪২ মিলিমিটার বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে বেশ কিছু এলাকার রাস্তাঘাট। সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত এক ঘণ্টার বৃষ্টিতে অনেক এলাকায় জলজটের সৃষ্টি হয়।

রাস্তার অর্ধেকের চেয়েও বেশি অংশ তলিয়ে থাকায় এক লেনে যান চলাচল করায় সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট।

জানা যায়, সকালে বৃষ্টির পর রাজধানীর ধানমণ্ডি-২৭, খিলক্ষেত, মুগদা, বনশ্রী, রামপুরা, খিলগাঁও, বাসাবো, মতিঝিল, সদরঘাট, ইসলামপুর, নাজিরাবাজার, পোস্তগোলা, শ্যামপুর, জুরাইনসহ বেশ কয়েকটি জায়গায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। পানি নেমে যেতে স্থানভেদে কয়েক ঘণ্টা পর্যন্ত সময় লাগে।

বৃষ্টিতে রাজধানীর স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী ও কর্মব্যস্ত মানুষ ভোগান্তিতে পড়ে।

বনশ্রী জি-ব্লক মেইন রোডের বাসিন্দা আবু বক্কর ছিদ্দিক স্বপন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সকালে বাসা থেকে বের হওয়ার পর বৃষ্টি শুরু হয়। রাস্তায় ৪০ থেকে ৪৫ মিনিট অপেক্ষা করে আবার পল্টনের উদ্দেশে রওনা হই। কিন্তু বনশ্রী ফরাজী স্কুলের সামনে থেকে রামপুরা ব্রিজ পর্যন্ত আসতে ৪০ মিনিট সময় লেগেছে। ভাঙা রাস্তায় পানি জমে থাকার কারণে যানবাহন চলাচলে স্থবির হয়ে পড়ে। সামান্য বৃষ্টি হলে এখানকার বাসিন্দাদের ঘর থেকে বের হওয়ার উপায় থাকে না।

বছরের পর বছর ধরে এমন দুর্দশায় থাকলেও দেখার কেউ নেই। ’

বনশ্রী এলাকার চরম ভোগান্তির পর রামপুরা টেলিভিশন সেন্টার থেকে মালিবাগ সড়কে যাতায়াতকারীরা পড়ে আরো বেশি ভোগান্তিতে। এ সড়কে প্রায় এক কিলোমিটারজুড়ে যানজটে বসে থাকতে হয়েছে ঘণ্টার পর ঘণ্টা। বৃষ্টির পর হাজীপাড়া পেট্রল পাম্পের সামনে রাস্তায় দেখা যায় পানির ঢেউ। যানবাহন চলতে গিয়ে পড়ে বিপাকে। গর্তে আটকে যায় অনেক যানবাহন। হাঁটুর ওপর পরিমাণ পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় যানবাহন চলাচলে তৈরি হয় ধীরগতি। সুপ্রভাত, তরঙ্গ প্লাসসহ বেশ কয়েকটি বাস গর্ত পার হতে গিয়ে দীর্ঘ সময় ধরে আটকে ছিল। এ ছাড়া সিএনজিচালিত অটোরিকশাগুলোকে দেখা গেছে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে সড়কের ওই অংশ পার হতে। এ সড়কে গর্তে পড়ে কয়েকজন পথচারী আহত হয়েছে বলেও জানা গেছে।

একই অবস্থা দেখা যায় খিলক্ষেত নামাপাড়া এলাকার কয়েকটি সড়কে। বৃষ্টির পর ভাঙাচোরা রাস্তায় পানি জমে মরণফাঁদে পরিণত হয়। ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের খিলক্ষেত শাখার নির্বাহী কর্মকর্তা রাশেদুল হাসান কিরণ বলেন, বৃষ্টির পর নামাপাড়া ও তালের টেক এলাকার রাস্তা তলিয়ে যায়। গতকালও সামান্য বৃষ্টির পর এ রাস্তায় পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। দুই বছর ধরে একই অবস্থার মধ্যে আছে স্থানীয় লোকজন। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় বৃষ্টি হলেই তাদের নাকাল হতে হয়। খিলক্ষেত লেকসিটি এলাকার একাধিক বাসিন্দা জানায়, খিলক্ষেত বাজার থেকে লেকসিটি পর্যন্ত ভাঙা সড়কে এখন চলাচল করাই কষ্টসাধ্য। গতকালের বৃষ্টির পরও এলাকার বটতলা পানির নিচে তলিয়ে যায়।

বৃষ্টির পর বেশ কিছু সময় রাজধানীর ধানমণ্ডি-২৭ সড়কেও পানি জমে থাকে। এক বছর ধরে সামান্য বৃষ্টি হলেই এ সড়কে পানি জমে যায়। এর কারণ হিসেবে জানা যায়, এ সড়ক থেকে পাম্প করে পানি সরানোর কাজটি এখন আগের মতো নিয়মিত হচ্ছে না। তাই বৃষ্টির সঙ্গে সঙ্গে রাজধানীর কোনো এলাকায় জলাবদ্ধতা না হলেও ধানমণ্ডিতে পানি জমে যায়।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, গতকাল সকালে রাজধানী ঢাকায় ১৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। সকাল সাড়ে ১০টার পর থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত টানা বৃষ্টির পরপরই কিছু এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।


মন্তব্য