kalerkantho


‘বিয়ন্ড দ্য গ্রেনেড’

শিল্পকর্মে ভয়াল ২১ আগস্ট

নওশাদ জামিল   

২২ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



শিল্পকর্মে ভয়াল ২১ আগস্ট

গতকাল রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমির নন্দন মঞ্চের সামনে শিল্পকর্ম ভয়াল ২১ আগস্ট। ছবি : কালের কণ্ঠ

চারদিকে রক্তের ছোপ ছোপ দাগ। রাজপথে পড়ে আছেন রক্তে ভেজা আইভি রহমান। পরনে কালচে ফুলের ওপর সাদা রঙের শাড়ি। সেই শাড়ি মুহূর্তেই রক্তে লাল। ঘটনার আকস্মিকতায় সবার প্রিয় ‘আইভি চাচি’ বাক্রুদ্ধ। তাঁকে যিনি উদ্ধার করতে ছুটে এলেন তাঁর শরীরেও রক্তের দাগ। শিল্পের আলোয় উঠে এলেন আইভি রহমান, উঠে এলেন শোকাবহ ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় অন্য শহীদরা। শিল্পকলা একাডেমির নন্দন মঞ্চের সামনে স্থাপনা চিত্রের মধ্য দিয়ে তুলে ধরা হলো ইতিহাসের সেই ভয়াল দিনের ঘটনাচিত্র।

বিভীষিকাময় চরম বর্বরতার দিন ২১ আগস্ট। হ্যাঁ, দিনটি বিভীষিকাময় এবং চরম বর্বরতারই বটে। ২০০৪ সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে লক্ষ্য করে যে নৃশংস গ্রেনেড হামলা হয়েছিল, সেই ঘটনার ভয়াবহতা সে কথাই বলে। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের জনসভায় বঙ্গবন্ধুকন্যাকে লক্ষ্য করে সেদিনের সেই গ্রেনেড হামলায় শেখ হাসিনা কোনো রকমে প্রাণে বাঁচলেও আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক আইভি রহমানসহ প্রাণ হারান ২৪ জন। আহত হয় মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার পক্ষের শত শত মানুষ।

শিল্পকলা একাডেমির নন্দন মঞ্চের পাশে প্রায় ১০ হাজার বর্গফুট জায়গাজুড়ে গতকাল সোমবার বিকেলে ফুটিয়ে তোলা হয় সেদিনের ভয়াবহতা। সেদিন বিকেল ৫টা ২০ মিনিটে যখন হামলা হয়েছিল, ঠিক সেই সময়ে উদ্বোধন করা হয় স্থাপনা শিল্পকর্মটির। ‘বিয়ন্ড দ্য গ্রেনেড’ শিরোনামের এ শিল্পকর্ম প্রদর্শন অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।  

গ্রেনেড হামলার পর আইভি রহমানকে ধরে রেখেছিলেন দুই নেতাকর্মী। তাঁদের শরীরও ছিল রক্তভেজা। নৃশংস হামলার শিকার আইভি রহমান তাকিয়ে অপলকভাবে। প্রদর্শনীতে আইভি রহমান সেজে প্রতীকী এক শিল্পী যন্ত্রণায় ছটফট করছিলেন। রক্তে ভেসে যাচ্ছেন তিনি। আর তাঁকে ধরে রেখেছেন প্রতীকী আরেক  কর্মী। তত্কালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সেদিন রক্ষা করতে তৈরি করা হয়েছিল মানবপ্রাচীর। উঠে এসেছে সেই দৃশ্যও। রাজপথে ভেসে চলেছে রক্তের বন্যা। বিশাল এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ছিল নেতাকর্মীদের জুতা। হাসপাতালে ছিল লাশের সারি। ভয়াবহ সেই গ্রেনেড হামলার ওপর ভিত্তি করে নির্মিত স্থাপনাশিল্পে তুলে ধরা হলো ২১ আগস্টের ঘটনাচিত্র।

শুধু আইভি রহমান নন, সেদিনের গ্রেনেড হামলা ও গুলিতে প্রাণ হারান ২৩ জন। আহত হয়েছে অসংখ্য মানুষ। কেউ কেউ পঙ্গত্ব বরণ করেছে সারা জীবনের জন্য। শরীরে স্প্লিন্টার নিয়ে বেঁচে আছে এখনো অনেকে। স্থাপনাকর্মে ফুটিয়ে তোলা হয় সেই মানুষগুলোর রক্তভেজা অবয়ব।

প্রদর্শনী ঘুরে দেখা যায়, রক্তের মধ্যে পড়ে আছে অবিস্ফোরিত তাজা গ্রেনেড। এর চারদিকে ছড়িয়ে আছে স্যান্ডেল, জুতা। অন্য পাশে দেখা যায় ফুটপাতে রক্তাক্ত পড়ে আছে চার নারীর দেহ। প্রত্যেকের শরীরে রক্তের প্রলেপ। আরেক জায়গায় ছিল গুলিবিদ্ধ গাড়ি। গাড়িটি ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন।

স্থাপনাশিল্প প্রদর্শনীর ভাবনা ও পরিকল্পনা করেছেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। এ আয়োজন সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘শিল্প কখনোই শুধু শিল্পীর জন্য নয়। শিল্পীরা যেসব শিল্পকর্ম তৈরি করেন, তাতে বিভিন্ন সময়ের সমাজের নানা সংগতি-অসংগতি উঠে আসে। আবার শিল্পীরা তাঁদের কোনো কোনো শিল্পকর্মে তুলে ধরেন ভবিষ্যৎ সুচিন্তিত দিকনির্দেশনাও। তিনি বলেন, ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা আমাদের হতবাক করে দেয়। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে ধ্বংসের এই ষড়যন্ত্র জাতির একটি ভয়ানক সময়ের সাক্ষ্য বহন করে, যা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য তুলে ধরা প্রয়োজন। মূলত সেই উদ্দেশ্যেই শিল্পকলা একাডেমি এ স্থাপনাশিল্প প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে।’

এ আয়োজনে কিউরেটর হিসেবে রয়েছেন শিল্পী অভিজিৎ চৌধুরী। আর দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭ জন তরুণ শিল্পীর সঙ্গে এ স্থাপনাশিল্প তৈরিতে অংশ নিয়েছেন দুজন অতিথি শিল্পী।



মন্তব্য