kalerkantho


বিএম কলেজ

ছাত্রলীগে দ্বন্দ্ব হলে ডাইনিং বন্ধ

আজিম হোসেন, বরিশাল   

২২ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



ছাত্রলীগের দুই পক্ষের দ্বন্দ্বের কারণে দেড় মাস ধরে বন্ধ বরিশাল সরকারি বিএম কলেজের মহাত্মা অশ্বিনী কুমার (ডিগ্রি) ছাত্রাবাসের ডাইনিং। শিক্ষার্থীরা এ ডাইনিং পরিচালনা করত। গত জুন মাসের শেষের দিকে ছাত্রলীগের দুই পক্ষ পরিচালনার দায়িত্ব নিতে চাইলে দ্বন্দ্ব বাধে। কলেজ প্রশাসন দুটি পক্ষকে সমন্বয় করে ডাইনিং পরিচালনা করতে বললে তারা রাজি হয়নি। এরপর সাধারণ শিক্ষার্থীদের ডাইনিং পরিচালনা করতে বলা হয়। কিন্তু ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাদের ভয়ভীতি দেখায়, যে কারণে তারা আর দায়িত্ব নিতে চায় না।

উল্লেখ্য, ছাত্রাবাসটিতে প্রায় ৫০০ শিক্ষার্থী থাকে।

ছাত্রাবাসের বাসিন্দা ইংরেজি বিভাগের ছাত্র ওবায়দুর রহমান বলেন, ‘আমাদের হলে ৯০টি কক্ষে শিক্ষার্থীরা থাকে। আগে সবাই ছাত্রাবাসের ডাইনিংয়ে খেত। কিন্তু রোজার ঈদের আগে হঠাৎ করেই ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ডাইনিংয়ের দায়িত্ব নেয়। কিন্তু ঠিকমতো চালাতে পারছিল না তারা। এ অবস্থায় ঈদের ছুটি হয়ে যায়। কিন্তু ছুটির পর আর ডাইনিং চালু হয়নি।’

ওবায়দুর রহমান বলেন, ‘ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ সমস্যার কারণে আমরা ডাইনিংয়ে খেতে পারছি না। আর এর দায়ভার কলেজ কর্তৃপক্ষের।’

ছাত্রলীগকর্মী অনিক আহমেদ বলেন, ‘রাকিবসহ আরো বেশ কয়েকজন দীর্ঘদিন ডাইনিং পরিচালনা করছিলেন। তবে তা ভালোভাবে চলছিল না। তাই আমরা পরিচালনার জন্য অনুমতি চেয়েছিলাম। তবে ছাত্রাবাস কর্তৃপক্ষ তা দেয়নি। এরপর আর ডাইনিং চলছে না। তবে এর কারণ আমরা জানি না।’

ছাত্রলীগকর্মী রাকিব হোসেন বলেন, ঈদের আগে তিনি ডাইনিং পরিচালনা করেছেন। কলেজ খোলার পরে জুলাই মাসে তিনি ডাইনিং পরিচালনার জন্য আবেদন করেন। তবে তা নাকচ করে দেয় ছাত্রাবাস কর্তৃপক্ষ। এরপর আর তিনি কিছু জানেন না।

মহাত্মা অশ্বিনী কুমার হলের (ডিগ্রি) সুপার রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘জুলাই মাসে ছাত্রাবাসের ডাইনিং পরিচালনা করতে ছাত্রলীগকর্মী রাকিব হোসেন ও অনিক আবেদন করে। আমরা ওই মাসে একজনকে পরিচালনা করার জন্য বলি। কিন্তু তা মানতে নারাজ দুজনই। এরপর সাধারণ শিক্ষার্থীদেরও করতে বাধা দেয় তারা। পরে ডাইনিং বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর বিষয়টি কলেজ অধ্যক্ষকে অবহিত করা হলে তিনি কর্মচারীদের দিয়ে ডাইনিং পরিচালনার নির্দেশ দেন। ছাত্রাবাসের দুজন কর্মচারীই ব্যক্তিগত কারণে ছুটিতে থাকায় ডাইনিং চালু করা সম্ভব হচ্ছে না। ছুটি শেষে তারা এলে ডাইনিং চালু করা হবে।’

কলেজ অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক স্বপন কুমার পাল বলেন, ছাত্রলীগের দুই পক্ষের দ্বন্দ্বের কারণে ডাইনিং বন্ধ রয়েছে। তবে বিকল্প ব্যবস্থায় ডাইনিং চালু করা হবে বলে জানান তিনি।



মন্তব্য