kalerkantho


বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলাবিধি

গেজেট জারি করতে আরো এক সপ্তাহ সময় পেল সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৮ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০



নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলাসংক্রান্ত বিধিমালা গেজেট আকারে জারি করতে সরকারকে আরো এক সপ্তাহ সময় দিয়েছেন আপিল বিভাগ। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের ছয় বিচারপতির বেঞ্চ গতকাল সোমবার সরকারকে এ সময় দেন।

গতকাল রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম গেজেট জারি করতে আরো দুই সপ্তাহ সময় চেয়ে আবেদন করেছিলেন। এ সময় প্রধান বিচারপতি অ্যাটর্নি জেনারেলকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘সব সময় মনে রাখবেন, সরকার ও প্রধান বিচারপতির মধ্যে সেতুবন্ধন হলেন অ্যাটর্নি জেনারেল। ’ এরপর প্রধান বিচারপতি ‘নট দিস উইক’ বলে অপরাপর বিচারপতিদের নিয়ে এজলাস থেকে নেমে যান।

গত রবিবার এই বিধমালা নিয়ে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। একই বিষয় নিয়ে আগামী ২০ জুলাই আবার বৈঠকে বসবেন তাঁরা। এর পরই গেজেট জারির বিষয়ে চূড়ান্ত হবে।

গত ২ জুলাই আপিল বিভাগ এক আদেশে বিধিমালাসংক্রান্ত গেজেট জারি করতে সরকারকে দুই সপ্তাহ সময় দেন। এরপর ১৬ জুলাই পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য থাকলেও তা হয়নি। এ কারণে গতকাল আপিল বিভাগের কার্যতালিকায় মামলাটি শুনানির জন্য ছিল।

এ অবস্থায় গতকাল অ্যাটর্নি জেনারেল সময়ের আবেদন দাখিল করেন।

১৯৯৯ সালের ২ ডিসেম্বর আপিল বিভাগ মাসদার হোসেন মামলায় ১২ দফা নির্দেশনা দিয়ে রায় দেন। রায়ে নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলাসংক্রান্ত বিধিমালা প্রণয়নের নির্দেশনা ছিল। আপিল বিভাগের নির্দেশনার পর ২০১৫ সালের ৭ মে আইন মন্ত্রণালয় বিধিমালার একটি খসড়া তৈরি করে সুপ্রিম কোর্টে পাঠায়। ওই বিধিমালা সংশোধন করে দেন আপিল বিভাগ। এ খসড়া আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। গত বছর ২৮ আগস্ট এক আদেশে এই বিধিমালা গেজেট আকারে জারি করে তা ৬ নভেম্বরের মধ্যে আদালতে দাখিল করতে আইন মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু এরপর থেকে রাষ্ট্রপক্ষ কয়েক দফা সময় নেয়। সর্বশেষ আপিল বিভাগের নির্দেশে গত বছর ১২ ডিসেম্বর আদালতে হাজির হন আইন মন্ত্রণালয়ের দুই সচিব। তাঁরা রাষ্ট্রপতির একটি প্রজ্ঞাপন নিয়ে হাজির হন। ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, গেজেট জারির প্রয়োজন নেই। তবে আপিল বিভাগ ১৫ জানুয়ারির মধ্যে গেজেট জারির নির্দেশ দেন।


মন্তব্য