kalerkantho


হজে গমনেচ্ছু ব্যক্তিকে ‘মৃত’ দেখানো

হাইকোর্টে তলব আখাউড়া থানার ওসিকে

নিজস্ব প্রতিবেদক ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

১৮ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০



পবিত্র হজে যেতে ইচ্ছুক জীবিত ব্যক্তিকে ‘মৃত’ দেখিয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন দেওয়ায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া থানার ওসি মো. মোশারফ হোসেন তরফদারকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। আগামী ২৩ জুলাই হাইকোর্টে হাজির হয়ে এ বিষয়ে তাঁকে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

একই সঙ্গে পুলিশি প্রতিবেদনে জীবিত ব্যক্তিকে মৃত দেখানো কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়েছে।

বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল সোমবার এ আদেশ দেন। পবিত্র হজে যেতে ইচ্ছুক ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আজাদ হোসেন ভূঁইয়ার করা এক রিট আবেদনে আদেশটি দেওয়া হয়। এই আজাদ হোসেনকেই মৃত দেখিয়ে প্রতিবেদন দেয় পুলিশ।

স্বরাষ্ট্র ও ধর্মসচিব, আইজিপি, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার এসপি ও আখাউড়া থানার ওসিকে এক সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. কায়সার জাহিদ ভূঁইয়া।

অন্যান্য বছরের মতো এবারও পবিত্র হজে যেতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের তালিকা করে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এ তালিকায় আখাউড়ার বাসিন্দা আজাদ হোসেন ভূঁইয়ার নাম রয়েছে। আগামী ১৮ বা ২৯ জুলাই তাঁর হজে যাওয়ার কথা।

কিন্তু গত ২০ জুন ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে পুলিশ প্রতিবেদন অংশে তাঁকে ‘মৃত’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এ অবস্থায় হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন আজাদ হোসেন।

আজাদ হোসেন ভূঁইয়া অভিযোগ করেন, পুলিশের এই প্রতিবেদনের কারণে তাঁর বিদেশ যাওয়া অনিশ্চিত। প্রতিবেদনের বিনিময়ে পুলিশ নগদ অর্থ চাওয়ায় তা তিনি দেননি বলেই এ ধরনের প্রতিবেদন দেওয়া হয়।

অবশ্য আখাউড়া থানার ওসি মো. মোশারফ হোসেন তরফদার এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘পুলিশ প্রতিবেদনের ফরম অনলাইনে পূরণ করতে হয়। সেটা করতে গিয়ে পাশের একটি গ্রামের শাহজাহান মিয়া নামের এক ব্যক্তিকে মৃত দেখাতে গিয়ে আজাদ হোসেনকে মৃত দেখানো হয়। পরে ঠিক করে প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। ’


মন্তব্য