kalerkantho


রাজাপুরে চুরির অপবাদে শিশুকে নির্যাতন

ঝালকাঠি প্রতিনিধি   

১৮ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০



ঝালকাঠির রাজাপুরে চালকুমড়া চুরির অভিযোগে সগীর হোসেন (৯) নামের এক শিশুকে পিটিয়ে ও পানিকে চুবিয়ে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার সন্ধ্যায় উপজেলার উত্তর তারাবুনিয়া গ্রামে এই ঘটনার পর আহত শিশুটিকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয় আবদুস সালামের ছেলে সগীর উত্তর তারাবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ে। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা রাজাপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। তবে পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

জানা যায়, উত্তর তারাবুনিয়া গ্রামের হাবিবুর রহমান বিক্রির জন্য রবিবার সকালে তাঁর সবজি ক্ষেত থেকে কয়েকটি চালকুমড়া তোলেন। এর মধ্যে একটি চালকুমড়া চুরি হয়ে যায়। তখন কুমড়া ক্ষেতের পাশের কান্দি (পথ) দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিল তাঁর খালাতো ভাইয়ের ছেলে শিশু সগীর। সন্ধ্যার দিকে হাবিবুর রহমান, একই গ্রামের জয়নাল মিয়া ও মামুন মিয়া মিলে শিশু সগীরকে চোর সন্দেহে ধরে নিয়ে পিটিয়ে আহত করে। একপর্যায়ে শিশুটিকে পার্শ্ববর্তী একটি খালের পানিতে চুবিয়ে শাস্তি দেয় তারা। সগীরের চিৎকারে স্থানীয়রা এসে তাকে উদ্ধার করে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সগীর বলে, ‘আমি সকালে কুমড়া ক্ষেতের পাশ দিয়ে হেঁটে বাড়িতে গেছি। সন্ধ্যায় আমাকে হাবিব কাকা ও আরো দুজন মিলে আমাকে একটি খালের পাশে ধরে নিয়ে যায়। সেখানে তারা চালকুমড়া চুরি করেছি বলে মারধর করে। আমি নিইনি বলার সঙ্গে সঙ্গে তারা লাঠি দিয়ে আঘাত করতে থাকে। আমি তাদের পা জড়িয়ে ধরে বলেছি, আমি জানি না। কিন্তু তারা আমাকে পানিতে চুবিয়েও শাস্তি দেয়। ’

শিশুটির বাবা আব্দুস সালাম বলেন, ‘কিছু না জানিয়ে মিথ্যা চুরির অপবাদ দিয়ে ওরা আমার ছেলেকে নির্মম নির্যাতন করেছে। পানিতে চুবিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে। লোকজন খবর না পেলে সগীরকে মেরে ফেলত ওরা। ’

রাজাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাহাবুবুর রহমান বলেন, শিশুটির গলা ও শরীরের একাধিক স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে বর্তমানে সে সুস্থ।

রাজাপুর থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস বলেন, এ ঘটনায় অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করছে। অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।


মন্তব্য