kalerkantho


৮০ দিন পর উন্মুক্ত হলো শিশু মেলা

নতুন নাম ‘ডিএনসিসি ওয়ান্ডারল্যান্ড’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



৮০ দিন পর উন্মুক্ত হলো

শিশু মেলা

শিশু মেলার স্থলে যাত্রা শুরু করেছে ডিএনসিসি ওয়ান্ডারল্যান্ড। গতকাল এর উদ্বোধন করেন মেয়র আনিসুল হক। ছবি : কালের কণ্ঠ

রাজধানীর শ্যামলীতে শিশু মেলা পার্কটি প্রায় ৮০ দিন পর সর্বসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে এটির নতুন নাম দেওয়া হয়েছে ‘ডিএনসিসি ওয়ান্ডারল্যান্ড’।

ভায়া মিডিয়া বিজনেস সার্ভিসেস নামের আগের ইজারাদার প্রতিষ্ঠানকেই আগামী এক বছরের জন্য নতুন করে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হক গতকাল রবিবার ডিএনসিসি ওয়ান্ডারল্যান্ড পার্কের উদ্বোধন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইজারাদার প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান জি এম মোস্তাফিজুর রহমান, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মেজবাহুল ইসলাম, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাঈদ আনোয়ারুল ইসলাম, প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম, ডিএনসিসির ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোবাশ্বের হোসেন চৌধুরী, ইকবাল হোসেন তিতু প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে মেয়র বলেন, ‘বেশ কয়েকটি কারণে ডিএনসিসি কর্তৃপক্ষ পার্কটি বন্ধ করে দিয়েছিল। প্রধান কারণ ছিল দীর্ঘ সময় ভাড়া পরিশোধ না করা। পরে ইজারা নেওয়া প্রতিষ্ঠান সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে। আগে চার হাজার ২৭ টাকা ভাড়ায় চুক্তি করা হয়েছিল। বর্তমানে তা বাড়িয়ে করা হয়েছে এক লাখ ২৭ হাজার টাকা। এ ছাড়া ডিএনসিসির পাওনা সাত লাখ ২৮ হাজার টাকার স্থলে জরিমানা হিসেবে প্রতিষ্ঠানটি প্রায় ২১ লাখ ৮৫ হাজার টাকা পরিশোধ করেছে।

আর এক বছরের অগ্রিমসহ মোট আদায় হয়েছে ৪২ লাখ ২১ হাজার ৩১ টাকা। ’ তিনি বলেন, ‘এক বছর পর উন্মুক্ত দরপত্রের মাধ্যমে পার্কের ব্যাপারে নতুন মূল্যায়ন করা হবে। এই মুহূর্তে প্রবেশ বা রাইডের ফি বাড়ানো হচ্ছে না। এই পার্ক ছাড়াও ডিএনসিসি আরো নতুন কিছু পার্ক করার পরিকল্পনা নিয়েছে। ’

জি এম মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘ঢাকা সিটি করপোরেশন ভাগ হওয়ার পর কিছু পার্ক নিয়ে কিছু আইনি জটিলতা তৈরি হয়। সে কারণে পার্কটি কিছুদিন বন্ধ ছিল। এখন ডিএনসিসির সব পাওনা দেওয়া হয়েছে। এই পার্কে পুরো সপ্তাহে অনাথ ও দুস্থ শিশুদের জন্য সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে বিনোদন উপভোগের সুযোগ দেওয়া হবে। ’

ডিএনসিসি সূত্র জানায়, ১৯৮৫ সালের ১৫ অক্টোবর ১ দশমিক ৪০ একর জমি গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় থেকে সিটি করপোরেশনের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এরপর ২০০২ সালে ঢাকা সিটি করপোরেশন ভায়া মিডিয়া বিজনেস সার্ভিসেসের কাছে নিজ খরচে শিশু পার্ক নির্মাণের জন্য ইজারা দেয়। এক লাখ ৫৬ হাজার ৭৫৬ টাকায় তিন বছরের ইজারার মেয়াদ ২০০৫ সালে শেষ হলেও ইজারাদার প্রতিষ্ঠান চুক্তি নবায়ন না করে আদালতের আশ্রয় নেয়।


মন্তব্য