kalerkantho


কৃষিপ্রযুক্তি

সব করবে মিনি হারভেস্টর

মোশতাক আহমদ   

২১ জানুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



সব করবে মিনি হারভেস্টর

গত কয়েক দশকে কৃষি শ্রমিকরা অন্য পেশায় চলে যাওয়ায় শ্রমিক সংকটে পড়ছে কৃষি খাত। কৃষি শ্রমিকরা গ্রাম ছেড়ে শহরমুখী হওয়ায় কৃষি শ্রমিকের সংকট মেটাতে নতুন সুখবর নিয়ে এলো মিনি কম্বাইন হারভেস্টর। ধান রোপণ-বপন থেকে শুরু করে ধান কাটা, মাড়াইসহ সব ধরনের কাজ করা যাবে এ যন্ত্র দিয়ে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, দেশে ১৯৮৮ সালে মাত্র ১৮ শতাংশ শ্রমিক কৃষি ছেড়ে অন্য পেশায় চলে যেত। কিন্তু ২০১৪ সালে এসে এ হার বেড়েছে ৫০ শতাংশেরও বেশি। এ ক্ষেত্রে পুরুষরাই বেশি কৃষি ছেড়ে অন্য পেশায় যাচ্ছে। তাই শ্রমিক সংকট মেটাতে পারে মিনি কম্বাইন হারভেস্টর।

কৃষি খাতের জন্য অতি উপকারী আধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন মেশিনটি গত ১১ থেকে ১৩ জানুয়ারি পর্যন্ত রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) আয়োজিত আরডিএর কৃষি প্রযুক্তি মেলায় বাংলাদেশে এই প্রথম প্রদর্শন করা হয়। মেলার আয়োজকরা জানান, মিনি হারভেস্টর ব্যবহারে শ্রমিকের ওপর নির্ভরতা কমাবে। কৃষকরা যথাসময়ে তাদের ফসল ঘরে তুলতে পারবে। ধান রোপণ ও মাড়াইয়ে একটি মিনি হারভেস্টর দৈনিক ২০ থেকে ২৫ জন শ্রমিকের সমপরিমাণ কাজ করতে পারবে। 

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, দেশে প্রথমবারের মতো চালু করতে যাওয়া এ মেশিনটি সরকারি ভর্তুকি মূল্যে পাওয়া যাবে। কৃষি মন্ত্রণালয় থেকেও মেশিনটি ব্যবহারে উৎসাহিত করা হচ্ছে। বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েও এটি কিনতে পারবে কৃষকরা।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সাধারণত মিনি কম্বাইন্ড হারভেস্টরের দাম সাত লাখ টাকার বেশি। কিন্তু সরকারের বিদ্যমান ভর্তুকি কার্যক্রমের মাধ্যমে ৩০ শতাংশ কম দামে পাওয়া যাবে মেশিনটি। ফলে কৃষকরা এটি পাঁচ লাখ ১০ হাজার টাকায় কিনতে পারবে। এ ছাড়া মেলায় পাওয়ার টিলারসহ ট্রাক্টর ও অনান্য ধান কাটা ও মাড়াইয়ের নানা প্রযুক্তি নিয়ে আসা হয়েছে।

ড. এম এ মতিন বলেন, কৃষি ও পল্লী উন্নয়ন করতে হলে গ্রামীণ পর্যায়ে কৃষি-প্রযুক্তি পৌঁছাতে হবে দ্রুততার সঙ্গে। দেশীয় প্রতিষ্ঠান কৃষি-প্রযুক্তি উদ্ভাবন ও তা সম্প্রসারণ করছে, যা আগে পুরোটাই আমদানিনির্ভর ছিল। দেশীয় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে এসিআই লিমিটেড কৃষকবান্ধব প্রযুক্তি উদ্ভাবন করছে।?

পল্লী উন্নয়ন একাডেমির তথ্য মতে, দেশে কৃষি যন্ত্রপাতির বাজার এখন প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকার। দেশে বর্তমানে ৬০ হাজার ট্রাক্টর, ৫০ হাজারের বেশি পাওয়ার টিলার, ২০ হাজারের বেশি চালকল রয়েছে। এ ছাড়া কৃষি যন্ত্রপাতি ও হালকা প্রকৌশল যন্ত্রপাতি, ওয়ার্কশপে ব্যবহৃত উন্নতমানের মেশিনারি, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ যন্ত্রপাতি, দুগ্ধ ও দুগ্ধ প্রক্রিয়াকরণ যন্ত্র, কৃষিপণ্য মাড়াইয়ের যন্ত্র, উদ্যান ফসলের উন্নয়ন প্রযুক্তি, বীজ ও বীজ উৎপাদন প্রযুক্তি, সৌরবিদ্যুৎ, বায়োগ্যাস জেনারেটর, ডিজেল জেনারেটর, সেচ, পানির পাম্প, পিভিসি ও প্লাস্টিক যন্ত্রপাতি ব্যবহৃত হচ্ছে।

এ বিষয়ে বেসরকারি খাতে কৃষি যন্ত্রপাতি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান এসিআই লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক ড. ফা হ আনসারী কালের কণ্ঠকে বলেন, বর্তমানে কৃষি নানামুখী প্রতিবন্ধকতার মুখে। একদিকে জমির পরিমাণ কমছে, শ্রমিক সংকট প্রকট হচ্ছে, পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে থাকা কৃষি উৎপাদনশীলতা ধরে রাখা যাচ্ছে না। অন্যদিকে শ্রমিকের স্থানান্তর ও সংকটে তিন বছরের ব্যবধানে মজুরি বেড়েছে প্রায় ৪০ শতাংশ। এ অবস্থায় সহায়ক হতে পারে প্রযুক্তি। কৃষির শ্রমিক সংকট মোকাবিলায় মিনি কম্বাইন্ড হারভেস্টর চালু করছে এসিআই লিমিটেড। গত এক দশকে কৃষিকাজে পুরুষের অংশগ্রহণ কমেছে সাড়ে ৩ শতাংশ। মাঠপর্যায়ে পাইলট আকারে ট্রায়াল দেওয়া এ প্রযুক্তি ব্যাপকভাবে সারা দেশে পাওয়া যাবে।

প্রসঙ্গত, ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় সম্প্রতি কৃষি-প্রযুক্তি মেলায় মিনি কম্বাইন হারভেস্টরের উদ্বোধন করেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় সচিব ড. প্রশান্ত কুমার রায়। তিন দিনব্যাপী সপ্তম আন্তর্জাতিক কৃষি-প্রযুক্তি মেলা ২০১৭-র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী প্রকৌশলী খন্দকার মোশাররফ হোসেন।



মন্তব্য