kalerkantho


রংপুরে বেনজীর আহমেদ

নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের দায় র‌্যাবের নয়, ব্যক্তির

রংপুর অফিস   

২১ জানুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের দায় র‌্যাবের নয়, ব্যক্তির

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড মাঠে গতকাল শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করেন র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ। ছবি : কালের কণ্ঠ

নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের বিষয়ে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেছেন, এ ঘটনার দায় বাহিনীর নয়। যারা অপরাধ করেছে তাদের। অপরাধীদের সাজা হয়েছে। এতে র‌্যাবের কোনো ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়নি।

গতকাল শুক্রবার রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড মাঠে দরিদ্র মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে র‌্যাবের প্রধান এসব কথা বলেন।

বেনজীর আহমেদ বলেন, নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনায় র‌্যাবই প্রথম তদন্ত করে এক দিনের মাথায় সিদ্ধান্ত নিয়ে জড়িতদের বরখাস্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে। র‌্যাব কোনো অন্যায়কে প্রশয় দেয় না।

র‌্যাব মহাপরিচালক বলেন, ‘র‌্যাব প্রতিষ্ঠার পর ১৩ বছরে বাহিনীর যেসব সদস্য অপকর্মে লিপ্ত হয়েছে তাদের চিহ্নিত করা হয়েছে। এ পর্যন্ত বিভিন্ন অভিযোগে র‌্যাবের অনেক সদস্যকে জেলে পাঠানো হয়েছে, তাদের চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। এ দেশের মানুষ র‌্যাবের প্রতি আস্থাশীল। যেকোনো মূল্যেই র‌্যাবকে সুশৃঙ্খল রাখা হবে।’

২০০৪ সালে পুলিশের বিশেষ ইউনিট হিসেবে যাত্রা শুরুর পর থেকে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের জন্য র‌্যাব সমালোচিত হয়ে আসছে।

২০১৪ সালে নারায়ণগঞ্জে কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম ও আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাতজনকে খুন করে লাশ শীতলক্ষ্যা নদীতে ডুবিয়ে দেওয়ার ঘটনায় র‌্যাব সদস্যদের সম্পৃক্ততার অভিযোগ উঠলে দেশজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়। ১৬ জানুয়ারি এই হত্যা মামলার রায়ে র‌্যাব-১১-এর তৎকালীন অধিনায়ক তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, দুই ক্যাম্প কমান্ডার আরিফ হোসেন ও এম এম রানাসহ বাহিনীর ২৫ সদস্যের সাজা হয়। তাঁদের মধ্যে ১৬ জনের মৃত্যুদণ্ড এবং ৯ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড হয়েছে।

ওই রায়ের পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালও বলেছিলেন, র‌্যাব সদস্যদের সাজায় বাহিনীর ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়নি।

র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ জঙ্গি প্রসঙ্গে বলেন, জঙ্গি সদস্যদের অধিকাংশই উত্তরাঞ্চলের। কেন এরা জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়ছে এ জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও র‌্যাব যৌথভাবে গবেষণার উদ্যোগ নিয়েছে। এই গবেষণার কাজ দেশের ১৪ জেলায় চলবে। তিনি আরো বলেন, ২০০৪ সালের পর পুনরায় ২০১৪ সালে জঙ্গিরা সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করছে। এদের সংখ্যা এক হাজারের অনেক কম। অনেকেই গ্রেপ্তার হয়ে জেলহাজতে রয়েছে। এর কারণ খুঁজতেই গবেষণার প্রয়োজন।

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে সরকারদলীয় সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যাকাণ্ড বিষয়ে র‌্যাবের প্রধান বলেন, পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব সদস্যরা লিটন হত্যার রহস্য উদ্ঘাটনের চেষ্টা করছেন। প্রকৃত খুনিরা গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত র‌্যাবের অভিযান চলবে।

দুপুর সাড়ে ১২টায় র‌্যাব-১৩-এর উদ্যোগে রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড মাঠে দরিদ্র শীতার্তদের মধ্যে কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠান হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ। শীতার্ত মানুষের পাশে বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল আনোয়ার লতিফ, পুলিশের রংপুর রেঞ্জের ভারপ্রাপ্ত উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) বশির আহমেদ, র‌্যাব-১৩-এর অধিনায়ক কমান্ডার আতিকুল্লাহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।



মন্তব্য