kalerkantho

শিশুসহ তিনজনের মৃত্যুর কারণ নিপাহ ভাইরাস

নওগাঁ প্রতিনিধি   

৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নওগাঁর মান্দা উপজেলায় দুই শিশুসহ তিনজনের মৃত্যুর কারণ নিপাহ ভাইরাস বলে নিশ্চিত করা হয়েছে। গত ১৭ থেকে ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত এ তিনজন আক্রান্ত হয় এবং তাদের মৃত্যু হয়। তাদের সংস্পর্শে থাকা ৩৯ জনকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

এ ছাড়া সময়মতো প্রতিবেদন না দেওয়ায় মান্দা উপজেলার দুজন স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

মৃতদের শরীরে নিপাহ ভাইরাসের জীবাণু পাওয়া গেছে বলে নিশ্চিত করেছেন নওগাঁর সিভিল সার্জন ডা. মোজাহারুল ইসলাম। তিনি জানান, মৃত তিনজনের লালা ও রক্ত, থুতু পরীক্ষার জন্য ঢাকার মহাখালীতে আইসিডিডিআরবিতে পাঠানো হয়েছিল। সেখানে পরীক্ষায় নিপাহ ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

সিভিল সার্জন জানান, তিনজনের আক্রান্ত হওয়ার ঘটনার তাৎক্ষণিক প্রতিবেদন দাখিল না করায় কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগে মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য পরিদর্শক (ইনচার্জ) ফয়েজ উদ্দিন তরফদার ও সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক তাইজুল ইসলামকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া ঘটনা তদন্তে ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী, ডা. মনোরঞ্জন মণ্ডল ও ডা. আল মাসুদ মিজানুর রহমানকে নিয়ে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উচ্চপর্যায়ে ছয় সদস্যের একটি দল এলাকা পরিদর্শনে আসবে। নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া দুই শিশু হলো মান্দা উপজেলার ভালাইন ইউনিয়নের ভালাইন গ্রামের মকলেছুর রহমানের ছেলে আপেল মাহমুদ (১১) ও আবুল কাসেমের ছেলে কাওসার আলী (১৩)। অন্যজন হলেন পরানপুর ইউনিয়নের বালুবাজার গ্রামের আলিমুদ্দীনের ছেলে হাফিজুল ইসলাম (২৫)।

আপেল মাহমুদের মা জুলেখা বিবি জানান, গত ২০ জানুয়ারি খেজুরের রস পান করে তাঁর ছেলে। ২২ জানুয়ারি সে জ্বরে আক্রান্ত হলে বিকেলে মহাদেবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় সেদিন আপেলকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন তার মৃত্যু হয়।

 

মন্তব্য