kalerkantho

তালাক নিয়ে হাইকোর্টে রিট, আদালতের রুল জারি

তালাকের নোটিশের পর ভরণ-পোষণ কেন নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ এপ্রিল, ২০১৯ ১৯:৪৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



তালাকের নোটিশের পর ভরণ-পোষণ কেন নয়

পবিত্র আল কোরআন এবং আন্তর্জাতিক কনভেনশনের আলোকে বিবাহ বিচ্ছেদ, ভরণ-পোষণ, সন্তান হেফাজত, দেনমোহর ইত্যাদি বিষয়ে সালিসি কাউন্সিলের ভুমিকা নিশ্চিত করতে কেন নীতিমালা করার নির্দেশ দেওয়া হবে না এবং সালিসি কাউন্সিল কার্যকর করতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ সোমবার এ রুল জারি করেন। বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির সম্পাদক সীমা জহুর ও অ্যাডভোকেট কাজী মারুফুল আলমের করা এক রিট আবেদনে এ রুল জারি করা হয়। মন্ত্রিপরিষদ সচিব, আইন সচিব, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং আইন কমিশনের চেয়ারম্যানকে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। 

আদালতে রিট আবেদনকারীপক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট ফাওজিয়া করিম ফিরোজ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারি অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ সাইফুল আলম। তালাক বিষয়ে গতবছর সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদন যুক্ত করে এ রিট আবেদন করা হয়।

আদালতের আদেশের পর ফাওজিয়া করিম ফিরোজ সাংবাদিকদের জানান, তালাকের নোটিশ পাওয়ার পর ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অনুযায়ী ৯০ দিনের মধ্যে কোনো পক্ষ আপোষ না করলে বা তালাকের নোটিশ প্রত্যাহার না করলে তালাক কার্যকর হয়ে যায়। নিয়ম অনুযায়ী, তালাকের নোটিশের পর সালিসি কাউন্সিল মধ্যস্থতার জন্য উভয়পক্ষকে একসঙ্গে বসার জন্য ৩০ দিন পরপর একটি করে মোট তিনটি নোটিশ দেবে। কিন্তু কাউন্সিলের পক্ষ থেকে এই পদ্ধতি যথাযথভাবে অনুসরণ না করায় এবং কোনোপক্ষ না কাউন্সিলের সঙ্গে না বসলেও আপনাআপনিভাবে তালাক কার্যকর হয়ে যায়। এ কারণে দেনমোহর, ভরণ-পোষণের অর্থ এবং সন্তান থাকলে কার জিম্মায় থাকবে তা নির্ধারণ ছাড়াই তালাক কার্যকর হয়ে যায়। ফলে স্ত্রী পক্ষ অসুবিধায় পড়েন। এনিয়ে ওইসব সুবিধা আদায়ে আদালতে মামলা হয়। যা নিষ্পত্তিতে অনেক সময় লেগে যায়। এ কারণেই বিষয়টি তড়িৎ নিষ্পত্তি করতে জনস্বার্থে রিট আবেদন করা হয়েছে। আদালত রুল জারি করেছেন।   

‘ঢাকায় ঘণ্টায় এক তালাক’ শিরোনামে ২০১৮ সালের ২৭ আগস্ট একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘ঢাকা শহরে তালাকের আবেদন বাড়ছে। গড়ে প্রতি ঘণ্টায় একটি করে তালাকের আবেদন করা হচ্ছে। গত ছয় বছরের তথ্য বিশ্লেষণ করে এমন চিত্র পাওয়া গেছে। তালাকের আবেদন সবচেয়ে বেশি বেড়েছে উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকায়-প্রায় ৭৫ শতাংশ। দক্ষিণ সিটিতে বেড়েছে ১৬ শতাংশ। দুই সিটিতে আপোষ হচ্ছে গড়ে ৫ শতাংশের কম। গত ছয় বছরে ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে অর্ধলাখের বেশি তালাকের আবেদন জমা পড়েছে। এ হিসাবে মাসে গড়ে ৭৩৬ টি, দিনে ২৪টির বেশি এবং ঘণ্টায় একটি তালাকের আবেদন করা হচ্ছে।’ 

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ‘তালাকের প্রবণতা সারাদেশের হিসাবেও বাড়ছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য বলছে, গত সাত বছরে তালাকের প্রবণতা ৩৪ শতাংশ বেড়েছে। শিক্ষিত স্বামী-স্ত্রীদের মধ্যে তালাক বেশি হচ্ছে।’ 

মন্তব্য