kalerkantho


মিথ্যা প্রলোভনে ভিয়েতনামে মানবপাচার!

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১১:১৪



মিথ্যা প্রলোভনে ভিয়েতনামে মানবপাচার!

প্রতীকী ছবি

বাংলাদেশ থেকে ভিয়েতনামে মানবপাচারের তথ্য তুলে ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে হতাশা প্রকাশ করেছেন ওই দেশে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সামিনা নাজ। গত বুধবার ফেসবুকে নিজের ওয়ালে মানবপাচারের শিকার হওয়া দুই বাংলাদেশি ও ‘পাচারকারী’ প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনের তথ্য তুলে ধরেন তিনি।

রাষ্ট্রদূত সামিনা নাজ লিখেছেন, ‘আর কত নিরীহ মানুষ মিথ্যা কাজের প্রলোভনে বিদেশে পাচারের শিকার হবে। এ দুজন বাংলাদেশি পাসপোর্ট এবং সব অর্থ হারিয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসে আবেদন করেছে দেশে ফিরে যাবার। পাসপোর্ট এবং সব অর্থ আর কেউ নয়, দেশি ভাই একজন হাতিয়ে নিয়েছে। ততদিনে ভিসার মেয়াদ শেষ।’ তিনি আরো লিখেছেন, ভিয়েতনাম সরকারের সঙ্গে বহু দেনদরবার করে ও জরিমানা দিয়ে তাদের ‘ইমিগ্রেশন এক্সিট’ ভিসা গত বুধবার পাওয়া গেছে। বাংলাদেশ দূতাবাস তাদের ‘ট্রাভেল পারমিট’ দিয়েছে। ওই বাংলাদেশির কাছে কোনো অর্থ ছিল না। ভিসা ফি বা এসংক্রান্ত অন্যান্য খরচের জন্য দূতাবাসের কোনো তহবিল নেই। এমনকি দূতাবাসে ছয় মাস ধরে কোনো অফিসারও নেই।

রাষ্ট্রদূত সামিনা নাজ লিখেছেন, ‘কবে এসব মানবপাচার বন্ধ হবে? যাঁরা সরকারের দায়িত্বশীল পদে আছেন তাঁরা কি এ ধরনের পাচার বন্ধে কোনো সহযোগিতা করতে পারেন?’

রাষ্ট্রদূত সামিনা নাজ ভিয়েতনামে লোক পাঠানোর নামে প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপনের প্রমাণসহ তথ্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছেন বলেও উল্লেখ করেছেন। ঢাকার মোহাম্মদপুরের পিসি কালচার রোডের ‘উইন এডুকেশন বাংলাদেশ’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনের ছবিও তিনি প্রকাশ করেছেন ফেসবুকে। গত নভেম্বর মাসে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত ওই বিজ্ঞাপনের শিরোনাম ছিল, ‘ভিয়েতনামে চাকরিসহ ডিপ্লোমা’। ওই বিজ্ঞাপনে ১৫ দিনে ভিসা ও ১০০% চাকরির নিশ্চয়তা ছাড়াও কম খরচে তিন বছরে চাকরিসহ ডিপ্লোমা, শিক্ষাকালীন সময়ে মাসে ৪০-৫০ হাজার টাকা বেতনে চাকরি এবং পাস করার পর ১০ বছর থাকার নিশ্চয়তার আশ্বাস রয়েছে।

বিজ্ঞাপনে উল্লিখিত মোবাইল ফোন নম্বরে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল পৌনে ৪টায় কালের কণ্ঠ’র পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে ‘উইন এডুকেশন বাংলাদেশ’ ওই অভিযোগ নাকচ করে। প্রতিষ্ঠানটি জানায়, তারা ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে কেবল ছাত্র পাঠায়। মানবপাচারের সঙ্গে তারা জড়িত নয়। প্রতিষ্ঠানটির নাম আসা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ‘উইন এডুকেশন বাংলাদেশ’ জানায়, কোথাও ভুল বোঝাবুঝি হচ্ছে কিংবা এই নামে আরো প্রতিষ্ঠান থাকতে পারে।



মন্তব্য