kalerkantho


ক্রীড়া সামগ্রী বরাদ্দ নিয়ে সংসদে সরকার দলীয় এমপিদের ক্ষোভ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৯:২২



ক্রীড়া সামগ্রী বরাদ্দ নিয়ে সংসদে সরকার দলীয় এমপিদের ক্ষোভ

প্রতিবছর প্রত্যেক সংসদ সদস্যদের নামে বরাদ্দকৃত ক্রীড়া সামগ্রীর মান নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সরকার দলীয় সংসদ সদস্য আবদুল মান্নান। টেবিল চাপড়ে অন্য সংসদ সদস্যরা এ অভিযোগ সমর্থন করেছেন। বিষয়টি স্বীকার করে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, এই মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি থাকাকালীন সময়েও এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সংসদ সদস্যরা। আমরা চেষ্টা করছি, এবার শুধু মান বৃদ্ধি, ক্রীড়া সামগ্রী বাড়ানোরও পরিকল্পনা নিয়েছি।

আজ মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রতিমন্ত্রী এ আশ্বাস দেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনে ক্রীড়া সামগ্রীর মান নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে আব্দুল মান্নান বলেন, প্রতি বছর এমপিদের নামে ক্রীড়া সামগ্রী (ফুটবল, জার্সিসহ) খেলাধুলার যে সকল সামগ্রী বরাদ্দ দেওয়া হয়, সেগুলো খুবই নিম্নমানের। মান বৃদ্ধি করতে না পারলে এটা বন্ধ করে দেওয়া উচিত। না হলে সরকারের বদনাম হবে, মন্ত্রণালয়ের বদনাম হবে। এবিষয়ে কোন পদক্ষেপ নেওয়া হবে কিনা তা প্রতিমন্ত্রীর কাছে জানতে চান তিনি।

সরকারি দলের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিনের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জানান, দেশের খেলাধুলার মান উন্নয়নে দেশের প্রতিটি বিভাগে একটি করে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (বিকেএসপি) আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি আরো জানান, বর্তমানে সারাদেশে বিকেএসপির কেন্দ্রের সংখ্যা ৫টি। কেন্দ্রগুলো হলো- বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান কার্যালয় সাভারের জিরানিতে, রংপুর বিভাগের দিনাজপুরে বিএকেএসপি আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, চট্টগ্রামে বিএকেএসপি আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, সিলেটে বিএকেএসপি আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং বরিশালে বিএকেএসপি আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। এছাড়াও কক্সবাজার জেলার রামুতে চট্টগ্রাম বিভাগের বিএকেএসপির প্রধান আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে এবং রাজশাহীতে বিএকেএসপি আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

জাতীয় পার্টির মশিউর রহমান রাঙ্গার সম্পুরক প্রশ্নের জবাবে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জানান, খেলাধুলার মানোন্নয়নে ইউনিয়ন পর্যায়ে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণের পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে। ইতোমধ্যে দেশের অধিকাংশ উপজেলায় স্টেডিয়াম নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। সারাদেশে এই প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার পর ইউনিয়ন পর্যায়ে এ ধরণের প্রকল্প গ্রহণ করার পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে।

জাসদের শিরিন আক্তারের অপর সম্পুরক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জানান, ভবিষ্যতে তৃণমূল পর্যায় থেকে জুডু ও তাইকোয়ান্দো খেলোয়াড় বাছাই করা হবে। জুডু ও তাইকোয়ান্দো আত্মরক্ষামূলক খেলা হিসেবে ইতোমধ্যে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এটি শুধু আত্মরক্ষাই নয় দেশ-বিদেশে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় দেশের জন্য সম্মান বয়ে আনতে পারে।

সরকারি দলের সদস্য আহসানুল ইসলাম টিটুর সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, ন্যাশনাল সার্ভিস প্রকল্পের আওতায় এ পর্যন্ত দেশের দারিদ্র্য প্রবণ এলাকার অনেক যুবকের কর্মসংস্থান হয়েছে। ভবিষ্যতে দেশের সকল উপজেলায় এই প্রকল্প গ্রহণের পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে।



মন্তব্য