kalerkantho


বৃহস্পতিবার শুরু রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন

নিশ্চিত করেছে মিয়ানমার

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

১৩ নভেম্বর, ২০১৮ ১০:৪১



বৃহস্পতিবার শুরু রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন

ফাইল ছবি

মিয়ানমার আগামী বৃহস্পতিবার রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়া শুরু করবে। গতকাল সোমবার মিয়ানমার বাংলাদেশকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। দুই দেশের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, প্রথম দফায় দুই হাজার ২৬০ জন রোহিঙ্গা মিয়ানমারে ফিরে যাবে। প্রতিদিন যাবে ১৫০ জন করে। এদিকে জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক হাইকমিশনার (ইউএনএইচসিআর) রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে রাখাইন রাজ্যের পরিবেশ ও পরিস্থিতি সরেজমিন দেখার সুযোগ পাওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি বলে জানালেও ঢাকার কূটনৈতিক সূত্রগুলো বলছে, রোহিঙ্গাদের অনেকে ফিরে যেতে চায়। বাংলাদেশ কাউকে জোর করে পাঠাবে না।

এদিকে ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত লুইন উ গতকাল সন্ধ্যায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অনুবিভাগের মহাপরিচালক দেলোয়ার হোসেনের সঙ্গে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, বৃহস্পতিবার প্রত্যাবাসন শুরু হচ্ছে। মিয়ানমার খুশি।

অন্যদিকে আজ মঙ্গলবার সিঙ্গাপুরে আসিয়ান শীর্ষ সম্মেলনে রোহিঙ্গা ইস্যুতে একটি বিবৃতি প্রকাশের কথা রয়েছে। ওই বিবৃতিতে মিয়ানমারকে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে পরিবেশ সৃষ্টির তাগিদ ও তাদের ওপর সহিংসতার নিন্দা জানানো হবে।

সু চির খেতাব কেড়ে নিল অ্যামনেস্টি

মিয়ানমারের বিতর্কিত নোবেলজয়ী নেত্রী অং সান সু চিকে দেওয়া ‘অ্যাম্বাসাডর অব কনসায়েন্স’ খেতাব কেড়ে নিয়েছে মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

গতকাল সোমবার অ্যামনেস্টির মহাসচিব কুমি নাইডুকে উদ্ধৃত করে সংগঠনটি এক বিবৃতিতে বলেছে, অং সান সু চিকে ২০০৯ সালে তারা পুরস্কারটি দিয়েছিল। তবে মানবাধিকার, ন্যায়বিচার বা সমতা রক্ষায় সু চি প্রত্যাশিত ভূমিকা না রাখায় তারা এ খেতাব প্রত্যাহার করে নিচ্ছে। বিবৃতিতে বলা হয়, সু চি তাঁর দেশবাসীর মানবাধিকার রক্ষায় রাজনৈতিক ও নৈতিক কর্তৃত্ব ব্যবহার করেননি। এমনকি মিয়ানমার সামরিক বাহিনীর নৃশংসতারও তিনি প্রতিবাদ করেননি।



মন্তব্য