kalerkantho


'এসডিজি অর্জনে সংসদ সদস্যদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ'

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০৪:৩৬



'এসডিজি অর্জনে সংসদ সদস্যদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ'

ছবি: কালের কণ্ঠ

এসডিজি অর্জনে উদ্যোগী হওয়ার জন্য সংসদ সদস্যদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, এমপি। তিনি বলেছেন, সংসদ সদস্যগণ স্থানীয় উন্নয়ন ও সমাজ গঠনমূলক কাজে ভূমিকা রাখছেন। এসডিজি অর্জনেও তাদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। সরকারের কার্যক্রমের পাশাপাশি সংসদ সদস্যগণ নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় এসডিজি লক্ষ্য সংশ্লিষ্ট কর্ম-পরিকল্পনা গ্রহণ করতে পারেন। আইন প্রণয়ন ও স্থানীয় জনগণের প্রতিনিধিত্ব মূল কাজ হলেও সংসদ সদস্যগণ যুব উন্নয়ন, মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার প্রতিরোধ ও বাল্যবিবাহ রোধে কার্যকর ভূমিকা রাখছেন। যা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত ও সমাদৃত হয়েছে।
 
গতকাল শুক্রবার হবিগঞ্জের বাহুবলে দ্য প্যালেস রিসোর্টে জাতীয় সংসদ সচিবালয় ও ইউএনডিপি’র যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এক কর্মশালায় তিনি আহবান জানান। ইউএন আবাসিক সমন্বয়ক মিয়া সেপ্পো’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির ছিলেন ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া। বক্তৃতা করেন জাতীয় সংসদের প্রধান হুইপ আ স ম ফিরোজ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ, ইউএনডিপি’র কান্ট্রি ডিরেক্টর সুদীপ্ত মুখার্জী, ইউএনডিপি’র কনসালটেন্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্র রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ববি ও ইউএনডিপি নিউ ইয়র্ক টীম লিডার মি. চার্লস স্যাভেল।
 
কর্মশালায় স্পিকার বলেন, এসডিজি’র লক্ষ্যগুলো সংসদ সদস্যদেরকে যথাযথ অবহিত করার জন্য জাতীয় সংসদ পদক্ষেপ নিয়েছে। তৃণমূল পর্যায়ে সংসদ সদস্যগণ জনগণকে সম্পৃক্ত করে এসডিজি লক্ষ্য অর্জনে কাজ করে যাচ্ছেন। জাতীয় সংসদ মন্ত্রণালয়ের কাজে আরো বেশি স্বচ্ছতা ও দায়বদ্ধতা নিশ্চিত করতে সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করেছে। যেখানে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত গ্রহণের সুযোগ রয়েছে। এ ছাড়াও সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের এসডিজি অর্জনে সক্ষমতা বাড়াতেও কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
 
ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, এসডিজি বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সঠিক পথেই রয়েছে। এমডিজির মতো এসডিজি যথাসময়ে বাস্তবায়ন করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এসডিজি অর্জনের লক্ষ্য বাস্তবায়নে কর্মপরিকল্পনা তৈরী করে পরিকল্পিত ও সফলভাবে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ বৈশ্বিক জলবায়ুর প্রভাব মোকাবেলায় নিজস্ব তহবিল গঠনের প্রথম নজির স্থাপন করেছে। সে কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পলিসি লিডারশীপ ক্যাটাগরিতে ‘চ্যাম্পিয়ন অব দ্য আর্থ’-এর ন্যায় বিরল সম্মানে ভূষিত হয়েছেন।
 
তিনি বলেন, নিজস্ব অর্থায়নে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, ল্যাকটেটিং মাদার সহায়তার ন্যায় নানামুখি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। যা এসডিজি অর্জনে সহায়ক অনুসঙ্গ হিসেবে কাজ করছে বলে তিনি আশাব্যক্ত করেন।
 
স্পিকার বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমানে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের কাতারে প্রবেশ করেছে। ভিশন-২০২১, ডিজিটাল বাংলাদেশে সকল অর্জন বাংলাদেশকে শক্ত অর্থনৈতিক ভিতের ওপর সুপ্রতিষ্ঠিত করেছে। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে। এ সময় তিনি অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় সকলকে একসাথে কাজ করার আহবান জানান তিনি।


মন্তব্য