kalerkantho


স্পিকার-ইউএনএফপিএ নির্বাহী পরিচালক বৈঠক

জনসচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমে বাল্যবিবাহ রোধ করা সম্ভব

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ মে, ২০১৮ ২৩:৪৬



জনসচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমে বাল্যবিবাহ রোধ করা সম্ভব

ছবি: কালের কণ্ঠ

ব্যাপক জনসচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমে বাল্যবিবাহ রোধ করা সম্ভব বলে মনে করেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। তার সঙ্গে একমত প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএফপিএ)-এর নির্বাহী পরিচালক এবং আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল ড. নাতালিয়া কানেম।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে জাতীয় সংসদ ভবনে স্পিকারের কার্যালয়ে এক বৈঠকে তারা এই মতামত ব্যক্ত করেন। এ সময় তারা বাংলাদেশের বাল্যবিবাহ, মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যু হার হ্রাস, যুব উন্নয়ন, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ ও জেন্ডার সমতা, নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন এবং স্বাস্থ্য খাত প্রভৃতি বিষয়ে আলোচনা করেন। 

বৈঠকে স্পিকার বলেন, সংসদ-সদস্যদের মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ে জনসচেতনতা সৃষ্টি করে বাল্যবিবাহ রোধ করা সম্ভব। আর বাল্যবিবাহ রোধের মাধ্যমে মাতৃস্বাস্থ্য উন্নয়নসহ মাতৃ ও শিশু মৃত্যু হার কমিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। তিনি আরো বলেন, নারী ক্ষমতায়নে বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ আজ রোল মডেল। তিনি বলেন, নারী ক্ষমতায়নেও সরকার বাস্তবমুখী পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে এটা সম্ভব হয়েছে। বাংলাদেশে মা ও শিশুদের উন্নয়নসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতার জন্য ইউএনএফপি’কে ধন্যবাদ জানান স্পিকার।

এ সময় ড. নাতালিয়া কানেম জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ ও জেন্ডার সমতায় বাংলাদেশের অগ্রগতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ইউএনএফপিএ এর অব্যাহত সহযোগিতার আশ্বাস দেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে যথেষ্ট অগ্রগতি সাধিত হয়েছে তা প্রশংসনীয়।

বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ইউএনএফপিএ এর অব্যাহত সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি। তিনি মাতৃ ও শিশু স্বাস্থ্য সুরক্ষা, মাতৃমৃত্যু হার হ্রাস এবং বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ বিষয়ে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের সঙ্গে যৌথ কার্যক্রম আরো জোরদার করারও আগ্রহ প্রকাশ করেন।


মন্তব্য