kalerkantho


পা কাটার পরও শঙ্কামুক্ত নয় গৃহকর্মী রুজিনা

নিজস্ব প্রতিবেদক    

২১ এপ্রিল, ২০১৮ ২২:৪৭



পা কাটার পরও শঙ্কামুক্ত নয় গৃহকর্মী রুজিনা

রাজধানীর বনানীর চেয়ারম্যান বাড়িতে বিআরটিসি দ্বিতল বাসের চাপায় ডান পা থেতলে যাওয়ার পর গৃহকর্মী রুজিনা আক্তারের সেই পাটি অস্ত্রপচারে কেটে ফেলা হয়েছে। নয়জনের সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছিলেন রুজিনার অসুস্থ বাবা-মা। এ কারণে আট বছর আগে ঢাকায় এসে গৃহকর্মীর কাজ নেন এই তরুণী। দরিদ্র পরিবারের সংগ্রামী এই মেয়েটি এখন জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানে (পঙ্গু হাসপাতাল) মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। সেখানকার চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, রুজিনা এখন শঙ্কামুক্ত নন। তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। 

পঙ্গু হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. আব্দুল গণি মোল্লা কালের কণ্ঠকে বলেন, শুক্রবার দিবাগত রাতেই রুজিনার অস্ত্রপচার হয়েছে। তাকে বাঁচিয়ে রাখতে তার ডান পায়ের হাটুর ওপর থেকে কেটে ফেলতে হয়েছে। এখন পর্যন্ত আট ব্যাগ রক্ত দেওয়া হয়েছে। 

তিনি আরো বলেন, সে(রুজিনা) এখন শঙ্কামুক্ত তা বলা যাবে না। তাকে আমরা আইসিইউতে নেইনি। তবে পর্যবেক্ষেণে রেখেছি।

এদিকে রুজিনার পা বিচ্ছিন্ন হওয়ার ঘটনায় বিআরটিসি বাসচালক শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে বনানী থানায় মামলা করা হয়েছে। আজ শনিবার আদালতের নির্দেশে তাকে এক দিনের রিমান্ডে এনেছে পুলিশ। 

এ বিষয়ে বনানী থানার ওসি ফরমান আলী বলেন, রুজিনার গৃহকর্তার পক্ষে মহিউদ্দিন নামে একজন বাসচালকের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এ মামলায় আজ শফিকুলকে বিজ্ঞ ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আদালত এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। 

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার রাত ৯টার দিকে চেয়ারম্যান বাড়ি ফুটওভার ব্রিজের কাছে রুজিনা ফুটপাত থেকে নেমে রাস্তা পার হওয়ার চেষ্টা করছিলেন। সে সময় মহাখালী থেকে কাকলীমুখী বিআরটিসির একটি বাস তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় এবং তার পায়ের ওপর দিয়ে চলে যায়। পরে পুলিশ বাসটিকে আটক করে। 

রুজিনা নিকেতনের ১২ নম্বর সড়কে গাজী টিভির এডিটর ইন চিফ সৈয়দ ইসতিয়াক রেজার বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করতেন বলে জানা গেছে। 



মন্তব্য