kalerkantho


উল্টো পথে মন্ত্রণালয়ের গাড়ি

ট্রাফিক কর্মকর্তার পায়ে তুলে দেওয়া হলো বাস

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৮ এপ্রিল, ২০১৮ ১৭:৩৬



ট্রাফিক কর্মকর্তার পায়ে তুলে দেওয়া হলো বাস

রাজধানীর পলাশী মোড়ে দায়িত্ব পালনরত পুলিশের ট্রফিক ইন্সপেক্টর মো. দেলোয়ার হোসেনকে চাপা দিয়েছে উল্টো পথের বাস। ট্রাফিক আইন অমান্য করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একটি বাস উল্টো পথে চলছিল।  বাসটিকে পুলিশ থামানোর পর উল্টো পুলিশের সঙ্গে তর্কে জড়ায় চালক ও হেলপাররা। একপর্যায়ে চালক বাস চালিয়ে দ্রুত কেটে পড়ার চেষ্টা করলে চাকার নিচে লালবাগ জোনের ওই ট্রাফিক কর্মকর্তার পা চাপা পড়ে। বাসটি আটক করা গেলেও পালিয়ে গেছে চালক নজরুল ইসলাম। গত সোমবার সকালের এ ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার শাহবাগ থানায় মামলা হয়েছে।

জানা যায়, ইন্সপেক্টর দেলোয়ার হোসেন সকাল ৭টা থেকে পলাশী এলাকায় দায়িত্ব পালন করছিলেন। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বহন করা বাস (ঢাকা-মেট্রো চ-০৮-০০৫৩) নীলক্ষেতের দিক থেকে উল্টো দিকের রাস্তায় পলাশী হয়ে সচিবালয়ের দিকে যাচ্ছিল। পলাশীর মোড়ে দায়িত্ব পালনরত এক এএসআইসহ তিনজন পুলিশ সদস্য বাসটিকে আটকে দেন। এ সময় বাসের চালক-হেলপারসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও নেমে পুলিশের সঙ্গে ঝগড়া শুরু করে। দূর থেকে এ দৃশ্য দেখে ট্রাফিক ইন্সপেক্টর দেলোয়ার হোসেন এগিয়ে আসেন। বাসের আরোহীরা তাঁর সঙ্গেও তর্কে জড়ায়। ঠিক এই সময় চালক বাসটি চালিয়ে দেয়। এতে ইন্সপেক্টর দেলোয়ারের বাম পা বাসের চাকার নিচে পড়ে থেঁতলে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় অ্যাপোলো হাসপাতালে। সেখান থেকে গতকাল দেলোয়ার হোসেনকে পান্থপথের স্পাইনাল অর্থোপেডিক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তিনি সেখানে ভর্তি ছিলেন। পরিবারের সদস্যরা বলছেন, এপোলোর একজন চিকিৎসক আশঙ্কা ব্যক্ত করে বলেছেন, পা কেটে ফেলতে হতে পারে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার (ট্রাফিক) মফিজ উদ্দিন আহমেদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শাহবাগ থানায় মামলা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমাদের কাজ খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। এমন ঘটনা এর আগেও ঘটেছে। এসব ঘটনা রোধে আমরা মালিক, শ্রমিক, চালকদের সঙ্গে বসব। চালকদের মোটিভেশনাল ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে। তাদের আচরণ বদলাতে হবে। তা না হলে এ ধরনের ঘটনা ঘটতেই থাকবে।’

শাহবাগ থানার এক পুলিশ কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে জানান, চালকের নাম নজরুল ইসলাম। তাকে গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে। এক প্রশ্নের জবাবে এই কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা খবর পেয়েছি বাস থেকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নেমে পুলিশের ওপর চড়াও হয়েছিল। বিষয়গুলো তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

প্রত্যক্ষদর্শী একজন জানান, পুলিশের পোশাক ধরেও টানাটানি করে আরোহীরা। এরই একপর্যায়ে বাসটি চাপা দেয় পুলিশ ইন্সপেক্টরকে। বাসটি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের। মন্ত্রণালয়ের অধীন কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের পরিচালক (উন্নয়ন) সৈয়দ মাহবুব-ই-জামিল গতকাল রাতে কালের কণ্ঠকে বলেন, পলাশীতে একটি ঘটনা ঘটেছে বলে খবর পেয়েছি। বিষয়টি নিয়ে আজ (মঙ্গলবার) মামলা হয়েছে বলেও শুনেছি।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘কোনো তদন্ত কমিটি হয়নি।’

গত বছর ২৪ সেপ্টেম্বর রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন সুগন্ধার সামনে উল্টো পথে চলা গাড়ি আটকাতে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদের গাড়ি থেকে শুরু করে সচিব, বিচারক, সরকারি দলের নেতা, পুলিশ ও সাংবাদিকদের গাড়িও ধরা পড়ে।


মন্তব্য