kalerkantho


বিমানবন্দর সড়ক-গাজীপুর বিআরটি

দুই লেন থেকে চার লেন হচ্ছে সাত উড়ালসেতু

নিজস্ব প্রতিবেদক    

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২১:৫৩



দুই লেন থেকে চার লেন হচ্ছে সাত উড়ালসেতু

ফাইল ছবি

সাতটি উড়াল সেতু প্রথমে দুই লেনে প্রশস্ত করার পরিকল্পনা বাদ দিয়ে এখন এগুলো চার লেন করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। উড়াল সেতুর প্রশস্ততা ছাড়াও জমি অধিগ্রহণ ও দ্বিগুন বাস কেনার পরিকল্পনার কারণে বিমানবন্দর থেকে গাজীপুর বিআরটি প্রকল্পের ব্যয় দ্বিগুণ হচ্ছে। 
 
প্রথমে ওই প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছিল দুই হাজার ৩৯ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। এখন তা হচ্ছে চার হাজার ৪৪১ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। 

গাজীপুর থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত ২০ দশমিক ৫০ কিলোমিটার বিআরটি প্রকল্প নেওয়া হয়েছিল ২০১২ সালে। কয়েকদিন আগে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ে প্রকল্পের স্টিয়ারিং কমিটির সভায় ব্যয় বাড়ানোর প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়। এখন প্রকল্পটির উন্নয়ন প্রস্তাব(ডিপিপি) সংশোধন করার প্রস্তাব তৈরি করা হবে। 

প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, সাতটি ফ্লাইওভার দুই লেনের পরিবর্তে চার লেন করা হচ্ছে। ৫০টি আর্টিকুলেটেড (দুই বগির জোড়া লাগানো) বাস কেনার কথা ছিল, তা বাড়িয়ে ১১০টি করা হয়েছে। 

বিআরটি নির্মাণে এক হাজার ২৮০ কোটি সরবরাহ করার প্রতিশ্রুতি আছে এডিবির, ৩৬০ কোটি টাকা দেবে এজেন্সি ফ্রান্স ডি ডেভেলপমেন্ট (এএফডি) ও ৩৬ কোটি ৮০ লাখ টাকা দেবে গ্লোবাল এনভায়রনমেন্ট ফ্যাসিলিটি (জিইএফ)। আর ৩৬৩ কোটি চার লাখ টাকা সরকারি তহবিল থেকে সরবরাহ করার কথা ছিল। বেড়ে যাওয়া ব্যয়ের একটি অংশ দেবে এডিবি এবং বাকি অংশ দেওয়া হবে সরকারি তহবিল থেকে। 

বিআরটি ব্যবস্থা চালু করতে গাজীপুর থেকে বিমানবন্দর সড়ক পর্যন্ত চার লেনের ২০ দশমিক ৫০ কিলোমিটার বাসের আলাদা লেন, ৩১টি স্টপেজ ও গাজীপুরে একটি বাস টার্মিনাল নির্মাণ করা হবে। সড়কের স্থানে স্থানে প্রশস্ত ও সার্ভিস সড়ক নির্মাণ করা হবে। আট লেনের টঙ্গী সেতু ও সাতটি মোড়ে উড়াল সেতু বা ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হবে। প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সওজ অধিদপ্তর, সেতু বিভাগ ও স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলজিইডি)।


মন্তব্য