kalerkantho


তামাকচাষীদের অন্য ফসল উৎপাদনে উৎসাহের উদ্যোগ

তামাকজনিত রোগে দেশে বছরে ৫৭ হাজার মানুষের মৃত্যু এবং প্রায় ৪ লাখ মানুষ পঙ্গু হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২৩:৪৩



তামাকচাষীদের অন্য ফসল উৎপাদনে উৎসাহের উদ্যোগ

তামাকের প্রভাবে দেশে মৃত্যু ও পঙ্গুত্ব কমানোর অন্যতম উপায় হিসাবে তামাক উৎপাদন বন্ধ করা বা চাষীদের নিরুৎসাহিত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) তামাক উৎপাদন নিয়ন্ত্রণে শুরু করেছে বিকল্প ফসল উৎপাদন ও বহুমুখী আয়ের উৎস সৃষ্টির কার্যক্রম।

আজ বুধবার জাতীয় তামাক বিরোধী প্ল্যাটফর্ম-এর দ্বিতীয় সভায় এ তথ্য জানানো হয়। সভায় তামাক বিরোধী কার্যক্রমে বিশেষ অবদান রাখার জন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি পর্যায়ে পুরষ্কার প্রবর্তনসহ বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। 

সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় তামাক বিরোধী প্ল্যাটফর্ম-এর আহ্বায়ক এবং পিকেএসএফ-এর পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ।

সভায় জানানো হয়, সর্বশেষ সার্ভের তথ্য অনুসারে বাংলাদেশে ৪কোটি ১৩ লাখ বা প্রাপ্তবয়স্ক জনগোষ্ঠির ৪৩ শতাংশ মানুষ তামাক সেবন করে। এ ছাড়া পরোক্ষ ধুমপানের শিকার হয় আরো প্রায়  ৪কোটি ৩০ লাখ মানুষ। এ ছাড়া প্রতিবছর দেশে তামাকজনিত রোগে মারা যায় ৫৭ হাজার মানুষ এবং পঙ্গুত্বের শিকার হয় ৩ লাখ ৮২ হাজার মানুষ। 

সভায় বলা হয়, ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে বাংলাদেশে  মোট তামাক চাষের এক তৃতীয়াংশ তামাক চাষ কুষ্টিয়া জেলায় হয়েছে। এ ছাড়া  মোট তামাক উৎপাদনের ৪৫ শতাংশ কুষ্টিয়া জেলায় হয়েছে। এজন্য পিকেএসএফ কুষ্টিয়া জেলায় তামাক চাষ করছে এমন ১০০ জন কৃষকের ১০০ বিঘা জমিতে তামাকের পরিবর্তে বিকল্প লাভজনক শস্য, গবাদী পশু পালন ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে অনুদান ও ঋণ প্রদান করে আসছে।



মন্তব্য