kalerkantho


'নতুন শৃঙ্খলাবিধির ফলে ন্যায়বিচার কালের গর্ভে হারিয়ে যাবে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৫:২৬



'নতুন শৃঙ্খলাবিধির ফলে ন্যায়বিচার কালের গর্ভে হারিয়ে যাবে'

ফাইল ছবি

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, বিচারিক আদালত সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। তাদের সরকারি গণপ্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার উদ্দেশ্য নির্বাহী বিভাগ তাদেরকে নিরঙ্কুশভাবে নিয়ন্ত্রণ করবে।চাকরি রক্ষার্থে নির্বাহী বিভাগের সকল অন্যায় আবদার শুনতে ও পালন করতে হবে। সুবিচার-ন্যায়বিচার কালের গর্ভে হারিয়ে যাবে।

আজ বুধবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী একথা বলেন।

আরো পড়ুন: সরকার দেশে খুনের রাজত্ব কায়েম করেছে : রিজভী

এই শৃঙ্খলাবিধি সংবিধানের ২২ অুনচ্ছেদ লঙ্ঘন করেছে মন্তব্য করে রিজভী বলেন, ২২ অনুচ্ছেদে স্পষ্টভাবে লেখা আছে বিচার বিভাগ হবে একটি স্বাধীন অঙ্গ এবং বিচার বিভাগ ও নির্বাহী বিভাগ সম্পূর্ণভাবে পৃথকীকরণ করা হবে। সেজন্য আইনও পাস করা হয়েছে। আজকে এই শৃঙ্খলাবিধির মাধ্যমে প্রশাসন থেকে বিচার বিভাগকে পৃথকীকরণের মৃত্যু ঘটেছে।

আরো পড়ুন: 'খালেদা জিয়াকে বিপর্যস্ত করা সরকারের নীল নকশারই অংশ'

তিনি বলেন, জারি করা বিধিমালায় বলা হয়েছে অধস্তন আদালতের বিচারকদের ‘নিয়োগকারী’ কর্তৃপক্ষ রাষ্ট্রপতি।রাষ্ট্রপতি এবং আইন মন্ত্রণালয়কে অধস্তন আদালতের বিচারকদের উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ হিসাবেও নির্ধারণ করা হয়েছে। এই বিধির ফলে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা বিঘ্নিত হবে। সাংবিধানিক প্রক্রিয়া ক্ষতিগ্রস্ত হবে। 

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আতাউর রহমান ঢালী, এ বি এম মোশাররফ হোসেন, হাবিবুল ইসলাম হাবিব, মীর সরাফত আলী সপু, আসাদুল করিম শাহীন, এম এ মালেক ও মো মুনির হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


মন্তব্য