kalerkantho


ব্যাংক কম্পানি আইন

অপরিবর্তিত থাকছে মন্ত্রিসভার প্রস্তাব, বিল পাসের সুপারিশ বুধবার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ নভেম্বর, ২০১৭ ২৩:০৯



অপরিবর্তিত থাকছে মন্ত্রিসভার প্রস্তাব, বিল পাসের সুপারিশ বুধবার

ব্যাংক কম্পানি আইন সংশোধনে জাতীয় সংসদে উত্থাপিত বিলে মন্ত্রিসভার প্রস্তব অপরিবর্তিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। এর মাধ্যমে সংশোধিত আইনে বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে একসঙ্গে এক পরিবারে চার সদস্য থাকার সুযোগ ও একটানা ৯ বছর পরিচালক পদে থাকার বিধান যুক্ত হবে।

আজ মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ ভবনে সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এ বিষয়ক সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়। বুধবার বিলটি পাশের সুপারিশ সম্বলিত প্রতিবেদন সংসদ অধিবেশনে উপস্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন কমিটির সভাপতি ড. আব্দুর রাজ্জাক। এর আগে ড. আব্দুর রাজ্জাকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটি সদস্য নাজমুল হাসান, মো. শওকত চৌধুরী, ফরহাদ হোসেন ও বেগম আখতার জাহান এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

কমিটি সূত্র জানায়, গত ১২ সেপ্টেম্বর সংসদে উত্থাপনের পর বিলটি যাচাই-বাছাইয়ের জন্য সংসদীয় কমিটিতে পাঠানোর পর ২৯ অক্টোবর অনুষ্ঠিত কমিটি বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে মন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ওই বৈঠকে অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান উপস্থিত থাকলেও অর্থমন্ত্রী ছিলেন না। যে কারণে আলোচনা হয়নি। তবে প্রতিমন্ত্রীসহ কমিটির সব সদস্য মন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করেই বিলের প্রতিবেদন চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রস্তুতের সিদ্ধান্ত নেন।

ওই বৈঠকের পর কমিটির সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক বলেছিলেন, 'বিলটি নিয়ে অনেক নেতিবাচক আলোচনা রয়েছে। আমরা অর্থমন্ত্রীর এ নিয়ে আলোচনা করে প্রতিবেদন চূড়ান্ত করতে চাই।

' কিন্তু কমিটির গতকালের বৈঠকেও মন্ত্রী হাজির হননি, ছিলেন না প্রতিমন্ত্রীও। তবুও বিলটি অপরিবর্তিত রেখে প্রতিবেদন চূড়ান্ত করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

এ বিষয়ে কমিটির সভাপতি এ ব্যাপারে বলেন, বিলটি যেভাবে এসেছে সেভাবে কমিটি পাস করার সুপারিশ করেছে। কমিটি অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনা করতে চাইলেও তা সম্ভব হয়নি। চলতি অধিবেশনেই বিলটি পাস হতে পারে বলে তিনি উল্লেখ করেন। চলতি বছরের ৮ মে মন্ত্রিসভার বৈঠকে সংশোধিত আইনের খসড়া অনুমোদনের পর থেকে ব্যাংক খাত সংশ্লিষ্টরা সরকারের এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে আসছেন। নতুন এই সিদ্ধান্তে বেসরকারি ব্যাংকে 'পরিবারতন্ত্র' কায়েমের সুযোগ তৈরি হবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। মূলত: প্রভাবশালী কয়েকজন ব্যবসায়ীকে সুযোগ দিতেই ব্যাংক কম্পানি আইন সংশোধন করা হচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠে।
প্রস্তাবিত আইনে একটানা নয় বছর পরিচালক পদে থাকার বিধানও রাখা হয়েছে। বিদ্যমান আইনে এক পরিবার থেকে সর্বোচ্চ দুজন সদস্য একটি ব্যাংকের পরিচালক হতে পারেন। আর তিন বছর করে পরপর দুই মেয়াদে মোট ছয় বছর একই ব্যক্তি পরিচালক হতে পারেন। এরপর তিন বছর বিরতি দিয়ে আবারো পরিচালক হতে পারেন।

আইনের প্রস্তাবিত সংশোধনীতে পরিচালকের মেয়াদ সংক্রান্ত ধারায় বলা হয়েছে, এই আইন কার্যকর হওয়ার পরে কোনো ব্যক্তি কোনো ব্যাংক-কম্পানির পরিচালক পদে একাধিক্রমে নয় বছরের বেশি থাকতে পারবেন না। নয় বছর পদে থাকার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর তিন বছর অতিবাহিত না হলে তিনি পরিচালক পদে পুনঃনিযুক্তির জন্য যোগ্য হবেন না।

এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে বলা হয়, বিদ্যমান আইনে অনেকেরই পরিচালক থাকার মেয়াদ শেষ হয়ে আসছিল। এর মাধ্যমে ব্যাংক পরিচালকদের কাছে সরকারের নতি স্বীকার হল বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

ব্যাংক কম্পানি আইন-১৯৯১ পাস হওয়ার পর থেকে বেসরকারি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে পরিচালকদের মেয়াদ-সম্পর্কিত ধারাটি পাঁচবার সংশোধন করা হয়েছে। এই ধারায় ব্যাংকের পর্ষদে একজন পরিচালক কত বছর পরিচালক থাকতে পারবেন, সে কথা বলা রয়েছে। সর্বশেষ ধারাটি সংশোধন করা হয় ২০১৩ সালে।


মন্তব্য