kalerkantho


সংসদে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী

শীঘ্রই দক্ষিণাঞ্চলে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের স্থান নির্বাচনের সমীক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ নভেম্বর, ২০১৭ ২০:২৯



শীঘ্রই দক্ষিণাঞ্চলে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের স্থান নির্বাচনের সমীক্ষা

দেশের দক্ষিণাঞ্চলে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের জন্য শীঘ্রই স্থান নির্বাচনের প্রাথমিক সমীক্ষা কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানিয়েছে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। তিনি বলেছেন, ইতোমধ্যে ‘বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন একটি সমীক্ষা প্রকল্প দাখিল করেছে।

যা পরিকল্পনা কমিশনে অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। অনুমোদন হলেই সমীক্ষা কাজ শুরু হবে।

আজ বৃহস্পতিবার বিকালে জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তরে তিনি এ তথ্য জানান। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শুরু হওয়া অধিবেশনে এ সংক্রান্ত লিখিত প্রশ্নটি উত্থাপন করেন আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য এ কে এম রহমতুল্লাহ।

জবাবে তিনি আরো জানান, দেশজ জ্বালানী সম্পদের সীমাবদ্ধতা, আমদানিকৃত জ্বালানীর উচ্চমূল্য এবং অন্যান্য জীবাশ্ম ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের উৎপাদন খরচের বিষয়টি বিবেচনা করে সাশ্রয়ী ও পরিবেশ বান্ধব উপায়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ লক্ষ্যে দুই হাজার ৪০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হচ্ছে। ওই প্রকল্প থেকে পর্যায়ক্রমে ২০২৩ সালে ও ২০২৪ সালে ওই বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে।

সরকারি দলের সদস্য মমতাজ বেগমের প্রশ্নের জবাবে ইয়াফেস ওসমান জানান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে গবেষণা ও উন্নয়ন কাজে উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা দেওয়ার লক্ষ্যে গবেষণা প্রকল্পে অনুদান দেওয়া হয়। চলতি বছরে এই খাতে ১২ কোটি ৮৫ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এরমধ্যে ৩৮৩টি প্রকল্পের আওতায় ১১ কোটি ২৭ লক্ষ টাকা অনুদান দেওয়া হয়েছে। এ সকল প্রকল্পে সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ ও সর্বনিম্ন দেড় লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগের সদস্য মাহফুজুর রহমানের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, সারাদেশে প্রত্যেকটি উপজেলায় একটি করে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ক্লাব গঠনের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এছাড়া চলতি বছর থেকে উপজেলা পর্যায়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহের আয়োজন করা হচ্ছে। যেখানে বিজ্ঞান মেলা ও বিজ্ঞান অলিম্পিয়াডের আয়োজন থাকবে।


মন্তব্য