kalerkantho


পুলিশের আরো ৩৪ মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা

নিজস্ব প্রতিবেদক    

১৫ নভেম্বর, ২০১৭ ০২:১৯



পুলিশের আরো ৩৪ মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা

মুক্তিযুদ্ধে প্রথম প্রতিরোধকারী পুলিশের বীর যোদ্ধাদের মধ্যে আরো ৩৪ জনকে সম্মাননা দেওয়া হয়েছে।  

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর মিন্টো রোডে পুলিশ কনভেশন সেন্টারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল উপস্থিত থেকে এ সম্মাননা প্রদান করেন।

এর আগে প্রথম দফায় পুলিশের ৪৪ জনকে এ সম্মাননা দেওয়া হয়েছিল।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের প্রাক্কালে পাকিস্তানের সামরিক জান্তা নিরস্ত্র বাঙালির ওপর যে হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিল তার প্রথম টার্গেট ছিল রাজারবাগ পুলিশ লাইনস। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের বজ্রদীপ্ত আহ্বানে উদ্দীপ্ত ছিল তত্কালীন পুলিশের বাঙালি সদস্যরা। তারা হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে ২৫ মার্চ সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। মুক্তিযুদ্ধে পুলিশের কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ সরকার ২০১১ সালে বাংলাদেশ পুলিশকে স্বাধীনতা পুরস্কার দিয়েছে।   

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক। তিনি বলেন, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের বিভীষিকাময় রাতে রাজারবাগসহ ঢাকা শহর পাকিস্তানি বাহিনীর আক্রমণের শিকার হয়েছিল। এ সংবাদ তাত্ক্ষণিকভাবে পুলিশের বেতারের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে সারাদেশে। এরপর প্রায় সব পুলিশ লাইন্সেই প্রতিরোধের প্রস্তুতি শুরু হয়।

রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সের মত প্রতিরোধ যুদ্ধ হয় রাজশাহী, চট্টগ্রাম, পাবনা, কুষ্টিয়াসহ বড় বড় পুলিশ লাইন্সে। রাজারবাগ কেন্দ্রীয় ওয়্যারলেস বেইজ থেকে প্রেরিত বার্তা সারাদেশে ছড়িয়ে পড়লে আপামর জনসাধারণ যুদ্ধের প্রস্তুতি গ্রহণ করেন।   

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সচিব অপরূপ চৌধুরী। পুলিশ ও র্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন নাট্য ব্যক্তিত্ব মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক হাসান আরিফ এবং প্রতিরোধযোদ্ধাদের পরিবারের সদস্যরা।   


মন্তব্য