kalerkantho


শেখ রাসেলের জন্মদিন পালন

২৫০ শিশুকে শিক্ষা উপকরণ দিল ছাত্রলীগ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ অক্টোবর, ২০১৭ ১৮:২৩



২৫০ শিশুকে শিক্ষা উপকরণ দিল ছাত্রলীগ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৪তম জন্মদিনে শিশুদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। ২৫০ জন শিক্ষার্থীর হাতে বই, খাতা, কলম ও ব্যাগ তুলে দিয়েছে।

এ সময় নীলক্ষেত হাইস্কুল, উদয়ন স্কুল ও ঢাকা ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুলের শিক্ষার্থীদের নিয়ে কেক কাটা হয়। এর আগে সকাল ৮টায় বনানী কবরস্থানে শহীদ শেখ রাসেলের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বোপার্জিত স্বাধীনতা চত্বরে এ জন্মদিন পালন করে সংগঠনটি। জন্মদিনে কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আবিদ আল হাসান এবং কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও হল শাখা ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ১৯৬৪ সালের ১৮ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন শেখ রাসেল। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকদের নির্মম বুলেটে শহীদ হন তিনি। ওই সময় শেখ রাসেলের বয়স ছিল প্রায় ১০ বছর। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবরেটরি স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র।

ছাত্রলীগ বলছে, শেখ রাসেলকে হত্যা করে বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরাধিকার নিশ্চিহ্ন করতে চেয়েছিল খুনিরা।

কিন্তু সেই চেষ্টা ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়েছে। বাংলাদেশের শিশু-কিশোর, তরুণ, শুভবুদ্ধি বোধসম্পন্ন মানুষের কাছে ভালোবাসার নাম শেখ রাসেল। অবহেলিত, পশ্চাত্পদ, অধিকারবঞ্চিত শিশুদের আলোকিত জীবন গড়ার প্রতীক। বিস্তীর্ণ জনপদ লোকালয়ে শেখ রাসেল মানবিক সত্ত্বায় পরিণত হয়েছে।  

সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, ১০ বছর বয়সে ঘাতকরা ছোট্ট শিশু শেখ রাসেলকে হত্যা করে। বঙ্গবন্ধুর উত্তরাধিকারকে নিশ্চিহ্ন করতে ঘাতকরা নিষ্পাপ শিশুটিকে হত্যা করতেও দ্বিধা করে নাই। তবে শেখ রাসেলের হত্যাকারীরা বিদেশ লুকিয়ে আছে। অতি দ্রুতই দেশে ফিরিয়ে এনে ফাঁসির রায় কার্যকর করা হোক।  

এস এম জাকির হোসাইন বলেন, শেখ রাসেল আমাদের প্রেরণার উত্স, পথ চলার শক্তি। প্রতিটা শিশুর হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে শেখ রাসেলের নাম। আমরা তাঁর হত্যাকারীদের দেশে ফিরিয়ে এনে ফাঁসির রায় কার্যকর করার দাবি করছি। ’


মন্তব্য