kalerkantho


বাসেত মজুমদারের স্ত্রীকে হত্যাচেষ্টা: দুই গৃহকর্মীর পাঁচ দিনের রিমান্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক    

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৮:১৪



বাসেত মজুমদারের স্ত্রীকে হত্যাচেষ্টা: দুই গৃহকর্মীর পাঁচ দিনের রিমান্ড

বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল বাসেত মজুমদারের স্ত্রীকে হত্যাচেষ্টা মামলায় দুই গৃহকর্মীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ বুধবার তাদেরকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ।

শুনানি শেষে পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদেশ দেন ঢাকা মহানগর হাকিম এ কে এম মইনউদ্দিন সিদ্দিকী।

আদালতে রিমান্ড আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আয়ুবুর রহমান। বনানী থানায় দায়ের করা ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা (আইও) আশরাফুল আলম আসামিদের আদালতে হাজির করেন।

জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ও বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল বাসেত মজুমদারের স্ত্রী রওশন জাহান মেহেরুন নেছাকে (৭২) হত্যাচেষ্টা  অভিযোগের মামলা এটি।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় বাসেত মজুমদারের বনানীর বাসায় পরিবাবের সদস্যদের অনুপস্থিতিতে এ হত্যা চেষ্টা চালায় গৃহকর্মী ফাতেমা (১৯)। ভিকটিম দীর্ঘদিন ধরে তার মেরুদণ্ডের সমস্যায় ভুগছেন। তাই মেরুদণ্ডে নিয়মিত গরম পানির সেক দিতে হয়। দুই মাস আগে নিয়োগ পাওয়া গৃহকর্মী ফাতেমা এ কাজটি করেন।

অভিযোগে বলা হয়, মঙ্গলবার ঘটনার সময় রওশন জাহান মেহেরুন নেছা ছাড়া পরিবারের কোনও সদস্য বাসায় ছিলেন না।

এই সুযোগে গৃহকর্মী ফাতেমা ভিকটিমের মেরুদণ্ডে গরম পানির সেক দিতে যান। সেক দেওয়ার একপর্যায়ে গৃহকর্মী রওশন জাহানের গলায় কাঁথা দিয়ে প্যাঁচ দেন এবং বালিশ দিয়ে নাক চেপে ধরে হত্যার উদ্দেশ্যে প্রচণ্ড  আঘাত করেন। ঘরের দরজা বন্ধ করে এ হত্যাচেষ্টা চালানো হয়। এ সময় চিৎকার করে ওঠেন ভিকটিম। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে ভিকটিম খাট থেকে মেঝেতে পড়ে যান।  

অভিযোগে আরও বলা হয়, বাসায় থাকা অন্য দুই কাজের লোক চিৎকার শুনে দরজা ভেঙে রওশন জাহানকে নাকে-মুখে রক্তাক্ত ও মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করেন এবং পরিবারের সদস্যদের খবর দেন। তারা ভিকটিমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেন। পুলিশকে খবর দিলে আসামিকে গ্রেপ্তার করে।  

ওইদিনই বনানী থানায় মামলা দায়ের করা হয় আবুল বাসেত মজুমদারের পরিবারে পক্ষ থেকে। এই গৃহকর্মীকে নিয়োগ দেওয়া হয় ঝর্ণা (৩৫) নামের এক নারীর মাধ্যমে। তাকেও মামলায় আসামি করা হয়। আদালতের শুনানিতে বাদীপক্ষের আইনজীবীরা বলেন, "এই হত্যাচেষ্টার পেছনে গৃহকর্মীর বড় ধরনের কোনও ষড়যন্ত্র ও পরিকল্পনা থাকতে পারে। এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আসামিদেরকে রিমান্ডে নেওয়া দরকার। " 


মন্তব্য