kalerkantho


'এবার ৬৮২টি পূজামণ্ডপ বেড়েছে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৭:১৯



'এবার ৬৮২টি পূজামণ্ডপ বেড়েছে'

ফাইল ফটো

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) একেএম শহীদুল হক বলেছেন, সারাদেশে এ বছর ৬৮২টি পূজামণ্ডপ বেড়েছে। দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকায় এবার পূজামণ্ডপের সংখ্যা বেড়েছে বলে তিনি জানান।

দেশে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অব্যাহত উন্নতি এবং নিরাপত্তা ঝুঁকি নেই বলেই দিন দিন পূজামণ্ডপের সংখ্যা বাড়ছে উল্লেখ করে আইজিপি বলেন, এবার সারা দেশে ৩০ হাজারের অধিক পূজামণ্ডবে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় পূজা অর্চনা অনুষ্ঠিত হবে।

তিনি আজ দুপুরে পুলিশ সদর দপ্তরে সাম্প্রতিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।

এ সময় অতিরিক্ত আইজিপি (এসবি) ড. জাবেদ পাটোয়ারী, র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ, ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়াসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতার কারণেই মানুষ স্বস্তি প্রকাশ করছে উল্লেখ করে শহীদুল হক বলেন, এবারও দুর্গাপূজা ও আশুরার কথা মাথায় রেখে সারা দেশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বিজিবি ও পুলিশের অতিরিক্ত সদস্য পূজামণ্ডপ ও হোসেনি দালানে মোতায়েন থাকবে। শান্তিপূর্ণভাবে দুর্গাপূজা ও আশুরা উদ্‌যাপনে ওইসব স্থানে পর্যাপ্ত আনসার সদস্যও মোতায়েন করা হবে।

আইজিপি বলেন, পূজামণ্ডপ এবং হোসেনি দালানে প্রবেশে প্রত্যেককে তল্লাশি করা হবে। আশুরার তাজিয়া মিছিলে অংশগ্রহণকারীদের ছুরি ও চাকু নিয়ে না যাওয়ার জন্য এবং হইহুল্লোড় না করা জন্য আইজিপি সকলের প্রতি অনুরোধ জানান।
 
রোহিঙ্গা সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেশের ভেতর ছড়িয়ে পড়া দুই শতাধিক রোহিঙ্গাকে শরণার্থী শিবিরে পাঠানো হয়েছে।

কক্সবাজার, উখিয়াসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পড়া এসব রোহিঙ্গাকে হাইওয়ে পুলিশের সহায়তায় শরণার্থী শিবিরে পাঠানো হয় বলেও তিনি জানান।

পুলিশ প্রধান বলেন, বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিয়েছে বলেই মানবিক কারণে মিয়ানমারের নাগরিকদের বাংলাদেশে আশ্রয় দিয়েছে সরকার। তাদের খাবার ও বাসস্থান দেয়া হয়েছে। তাদের ডেটাবেজ করার জন্য আইডি কার্ড দেয়া হচ্ছে। এই আইডি কার্ড দিয়ে তারা বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা নিতে পারবে। তারা শরণার্থী শিবিরের ভেতরেই থাকবে। যদি কোনো রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাইরে চলে আসে, পুনরায় তাকে ক্যাম্পে ফেরত পাঠানো হবে।


মন্তব্য