kalerkantho


এটি দৃষ্টান্তমূলক রায় : অ্যাটর্নি জেনারেল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ আগস্ট, ২০১৭ ১৭:৫৬



এটি দৃষ্টান্তমূলক রায় : অ্যাটর্নি জেনারেল

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুন মামলার আসামিদের মধ্যে ১৫ আসামির মৃত্যুদণ্ড বহাল ও ১১ আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায়ের প্রসঙ্গে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা এ খুনের সঙ্গে জড়িত থাকায় এটি দৃষ্টান্তমূলক রায়। ১১ জনের মৃত্যুদণ্ডের সাজা পরিবর্তন করে যাবজ্জীবন করায় আপিল করা হবে কি না এ বিষয়ে রায় দেখে চিন্তা-ভাবনা করা হবে।

সাত খুন মামলার ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের আপিল শুনানি শেষে মঙ্গলবার বিকেলে বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিং ও বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলামের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রায় ঘোষণার পর এক তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের এ কথা জানান অ্যাটর্নি জেনারেল।

এছাড়া মামলার অন্য আসামিদের যে দ্বন্দ্ব দেয়া হয়েছে তা বহাল থাকবে বলেও তিনি জানান।

হাইকোর্টের আজ মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে প্রধান আসামি নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর নূর হোসেন, র‌্যাব-১১-এর চাকরিচ্যুত সাবেক অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তারেক সাঈদ মুহাম্মদ, মেজর আরিফ হোসেন, লেফটেন্যান্ট কমান্ডার মাসুদ রানা, হাবিলদার মো. এমদাদুল হক, ল্যান্সনায়েক বেলাল হোসেন, সিপাহী আবু তৈয়্যব আলী, কনস্টেবল শিহাব উদ্দিন, এসআই পূর্ণেন্দু বালা, ল্যান্স নায়েক হীরা মিয়া ও আরওজি-১ এ বি মো. আরিফ হোসেন, সৈনিক মহিউদ্দিন মুন্সী, সৈনিক আল আমিন শরীফ, সৈনিত এমডি তাজুল ইসলামের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখেন।

এছাড়া সিপাহী আসাদুজ্জামান নূর, সার্জেন্ট এনামুল কবির এবং নূর হোসেনের ছয় সহযোগী মূর্তজা জামান চার্চিল, আলী মোহাম্মদ, মিজানুর রহমান দিপু, আবুল বাশার, রহম আলী ও জামাল উদ্দিন সরদারসহ ১১ জনের মৃত্যুদণ্ড পরিবর্তন করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দেন।

মঙ্গলবার সকাল ১০টা ৩৫ মিনিটে রায় পড়া শুরু হয়। বেলা ১টায় এক ঘণ্টার জন্য বিরতিতে যান আদালত। বিরতির পর বেলা সোয়া ২টা থেকে ফের রায় পড়া শুরু করেন বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিং ও বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম।


মন্তব্য