kalerkantho


সীমান্ত পেরিয়ে হামলা

শূন্যরেখা থেকে বসতি সরানোর কথা ভাবছে আসাম

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৮ মার্চ, ২০১৭ ১৩:২৯



শূন্যরেখা থেকে বসতি সরানোর কথা ভাবছে আসাম

বাংলাদেশের সঙ্গে সীমান্তের শূন্যরেখা থেকে বাড়িঘর সরিয়ে নেওয়ার কথা বিবেচনা করছে ভারতের আসাম রাজ্য সরকার। গত শুক্রবার আসাম বিধানসভায় আলোচনার সময় সংসদবিষয়ক মন্ত্রী চন্দ্রমোহন পাটোয়ারি এ কথা জানান।

তিনি বলেন, সীমান্তজুড়ে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতির লক্ষ্যে রাজ্য সরকার এ বিষয়ে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে আলোচনা করবে। আসামের করিমগঞ্জের ১০টি, কাছাড়ে ২৪টি ও ধুবড়ির দুটি পরিবারের ঘরবাড়ি সীমান্তের শূন্যরেখায়।

এর আগে রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী প্রফুল্ল কুমার মহান্ত সীমান্ত বেড়া ও শূন্যরেখার মধ্যবর্তী স্থানে বসবাসরত ভারতীয় নাগরিকদের সরিয়ে নিতে কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে আলোচনার আহ্বান জানান। তিনি সুনির্দিষ্টভাবে গত বুধবার রাতে বাংলাদেশ সীমান্ত থেকে আসামের করিমগঞ্জের একটি গ্রামে হামলার ঘটনা তুলে ধরেন। ভারতীয় বার্তা সংস্থা পিটিআই জানায়, বিধানসভায় আলোচনা পর্বে বিধায়ক কমলাক্ষ দে পুরকায়স্থ সীমান্তে বেড়া নির্মাণের স্থান পুনর্নিধারণের আহ্বান জানান।

এদিকে বাংলাদেশ থেকে ভারতীয় গ্রামে ঢুকে হামলা চালানার অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে, গত বুধবার রাত দেড়টায় কয়েক ব্যক্তি অবৈধভাবে বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী ভারতের আসাম রাজ্যের জারাপাতা গ্রামে ঢুকে হামলা চালায়। এতে কল্পনা শুক্লা বৈদ্য নামের এক নারী ও তার দুই মেয়ে গুরুতর আহত হন। আহতদের করিমগঞ্জ সিভিল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কল্পনা শুক্লা বৈদ্যর দাবি, সিলেটের বিয়ানিবাজার উপজেলার বড়গ্রাম থেকে সাহাবুদ্দিন (৫৫), জাবের (৩০), আজমল (৪৭) ও খালেক (৪২) নামের চার ব্যক্তি গবাদি পশু ছিনিয়ে নিতে তাকে বাঁশ দিয়ে পেটানো শুরু করে। এ সময় তাকে বাঁচাতে তার দুই মেয়ে প্রিয়াঙ্কা শুক্লা বৈদ্য (২০) ও গৌরি শুক্লা বৈদ্য (১৮) এগিয়ে এলে হামলাকারীরা তাদেরও পিটিয়ে আহত করে।

ওই হামলার পর থেকে ভারতীয় গ্রামবাসীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো বাংলাদেশ থেকে অবৈধ ও বেপরোয়া অনুপ্রবেশের বিষয়টি তুলে ধরেছে। জানা গেছে, কল্পনা শুক্লা বৈদ্যর ঘর সীমান্তের শূন্যরেখায় এবং ইন্দো-বাংলা সীমান্ত বেড়ার প্রায় দেড় শ মিটার সামনে। সীমান্ত পিলারটি পড়েছে তার ঘরের বারান্দায়।


মন্তব্য