kalerkantho


'জঙ্গি অর্থায়নে জড়িত এনজিওদের যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে'

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৬ মার্চ, ২০১৭ ১৯:০৮



'জঙ্গি অর্থায়নে জড়িত এনজিওদের যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে'

জঙ্গি অর্থায়নের সঙ্গে জড়িত এনজিওদের তালিকা যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংসদ কার্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী। আজ সোমবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে লিখিত প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এতথ্য জানান।

সরকারি দলের সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে কৃষিমন্ত্রী আরো জানান, যে কোনো ধরণের জঙ্গি অর্থায়নের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থানে রয়েছে। যে কোন প্রকল্প প্রস্তাবে জঙ্গি অর্থায়ন এবং মানি লন্ডারিং কাজে তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির কাছ থেকে কোন অর্থ গ্রহণ করা হয়নি মর্মে এনজিওসমূহকে ঘোষণা প্রদান করতে হয়। এবিষয়ে দাতা সংস্থার তথ্যও যাচাই করে দেখা হয়।

সদস্য আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমের প্রশ্নের লিখিত উত্তরে মতিয়া চৌধুরী জানান, বেসরকারি খাতে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকে আকৃষ্ট ও বিনিয়োগ সেবাকে বিশ্বমাণ করার লক্ষ্যে সম্পূর্ণ অটোমেটেড ও কার্যকর ওয়ান স্টপ সার্ভিস দিতে আইন প্রণয়ন করা হচ্ছে। সরকার ‘প্রাইভেট ইনভেস্টমেন্ট (প্রমোশন এ্যান্ড প্রটেকশন) এ্যাক্ট-১৯৮০’-এর মাধ্যমে দেশি ও বিদেশি বিনিয়োগকারীগণের বিনিয়োগের নিরাপত্তাসহ বিনিয়োগকারীগণের প্রতি সম-আচরণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কোন বিদেশি বিনিয়োগকারী ১০ লাখ ইউএস ডলার বিনিয়োগ করলে তিনি বাংলাদেশের নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য বিবেচিত হবেন।  

মন্ত্রী জানান, দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগের জন্য এলাকাভেদে কর অবকাশ সুবিধা প্রদান করছে। অনাবাসী বাংলাদেশিদের (এনআরবি) বিনিয়োগকে বিদেশি বিনিয়োগ হিসেবে গণ্য করা হয়েছে। দ্বৈত কর পরিহারের চুক্তি মতে কর অব্যাহতির ব্যবস্থা করা হয়েছে।

২০১২ সালের জুন পর্যন্ত সে সকল বেসরকারি খাতে বিদ্যুৎ প্রকল্প বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু করেছে তারা ১৫ বছর পর্যন্ত কর অব্যাহতির সুযোগ পাচ্ছে। ২০১৯ সালের মধ্যে এ খাতে বিনিয়োগ করলে ১২ বছর পর্যন্ত কর অবকাশ সুবিধান প্রদান অব্যাহত রাখা হবে।  

একই প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, বিদেশি বিনিয়োগকারীকে স্থায়ী রেসিডেন্টশিপ দেওয়ার ক্ষেত্রে বিদ্যমাণ আইনে ন্যূনতম ৭৫ হাজার ইউএস ডলার বিনিয়োগের যে শর্ত রয়েছে, তা বাড়িয়ে ২ লাখ ইউএস ডলার করা হয়েছে। সম্ভাবনাময় বিদেশি বিনিয়োগকারীকে ন্যূনতম ৫ বছরের মাল্টিপল ভিসা দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া বিদ্যমান আইনের আওতায় বৈদেশিক বিনিয়োগের জন্য বিনিয়োগকৃত মূলধন পূর্ণ প্রত্যাবাসনের সুবিধান প্রদান অব্যাহত থাকবে।  


মন্তব্য