kalerkantho


সংসদে গণহত্যা দিবসের উপর আলোচনা ১১ মার্চ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ মার্চ, ২০১৭ ২২:২৫



সংসদে গণহত্যা দিবসের উপর আলোচনা ১১ মার্চ

জাতীয় সংসদের চলতি অধিবেশন চলবে ১১ মার্চ পর্যন্ত। ওই দিনই গণহত্যা দিবস নিয়ে আলোচনা হবে।

ইতোমধ্যে সংসদে ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস হিসেবে পালনের প্রস্তাব এসেছে। এ বিষয়ে বিশ্ব জনমত গড়ে তোলার দাবি জানানো হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে অধিবেশনের শুরুতেই স্পিকার ড, শিরীন শারমিন চৌধুরী সংসদকে জানান, কার্যউপদেষ্টা কমিটির বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুসারে এ অধিবেশন ৯ মার্চ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও চলতি অধিবেশন ১১ মার্চ পর্যন্ত চলবে। ৯ মার্চ রাষ্ট্রপতির ভাষণ সম্পর্কে আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাবের উপর আলোচনা শেষ হবে। আর গণহত্যা দিবসের উপর ১১ মার্চ সংসদে সাধারণ আলোচনা হবে।  

উল্লেখ্য, ১৫ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদে অনির্ধারিত আলোচনায় বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ একাত্তরে পাকিস্তানী বাহিনীর নির্মমতায় নিহতদের স্মরণে ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালনের প্রস্তাব করেন। তারসঙ্গে অধিকাংশ সংসদ সদস্য একমত পোষণ করেন। প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনাও ওই প্রস্তাবের সঙ্গে একমত পোষণ করেন। সেদিন তিনি বলেন, একাত্তরে পাকিস্তানি বাহিনীর নির্মমতা ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যেন জেনে বড় হয়, সে লক্ষ্যে ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস হিসেবে পালনের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

এমনকি এ বিষয়ে বিশ্ব জনমত গড়ে তুলতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এরপর স্পিকার শিরীন শারমিন বলেন, ২৫ মার্চে গণহত্যা দিবস পালনের দাবি সম্বলিত একটি প্রস্তাব আমি ইতোমধ্যেই পেয়েছি। আমাদের একজন মাননীয় সংসদ সদস্য বিষয়টি দিয়েছেন। আমরা অগ্নিঝরা মার্চের যে কোনো একদিন সংসদের বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবো। পরে ১১ মার্চ ওই আলোচনা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।


মন্তব্য