kalerkantho


আইনজীবীদের ভূমিকা নিয়ে সমালোচনায় প্রধান বিচারপতি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১ মার্চ, ২০১৭ ২৩:১৩



আইনজীবীদের ভূমিকা নিয়ে সমালোচনায় প্রধান বিচারপতি

বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ও মর্যাদা অক্ষুণ্ন রাখার ক্ষেত্রে এই অঙ্গনের অন্যতম অংশীদার আইনজীবীদের বর্তমান ভূমিকায় হতাশা প্রকাশ করেছেন প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা। আজ বুধবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় বর্তমান আইনজীবীদের মামলা পরিচালনার দক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি।

একই সঙ্গে প্রধান বিচারপতি আইনজীবীদের গুরুত্ব তুলে ধরে তাদের শুধু মামলাই নয়, বিচারাঙ্গনের মর্যাদা রক্ষায় তাদের সক্রিয়তা প্রত্যাশা করেন। তিনি বলেন, “আপনারা যদি এটা মেনে নেন যে, আসামিদের জামিন, কোনো দেওয়ানি মামলায় নিষেধাজ্ঞা বা স্থগিতাদেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবেন; তাহলে কিন্তু শাসনতন্ত্র, আইনের শাসন, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা কোনোটাই টিকবে না।

এস কে সিনহা বলেন, “আইনের শাসন ও বিচার বিভাগের স্বাধীনতার জন্য আপনারা (আইনজীবীরা) এগিয়ে আসবেন। কেন প্রধান বিচারপতি শুধু বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে বলবে- এখানে আইনের শাসন হচ্ছে না, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা হচ্ছে না, বিচারকদের জন্য রুলস হচ্ছে না। আজ পর্যন্ত তো কোনো আইনজীবীকে কোনো মিডিয়ায় বলতে শুনিনি এটা ঠিক হচ্ছে না?”

এ সময় বার কাউন্সিলের আগের কার্যক্রমের প্রশংসা করে বর্তমান নেতৃত্বের ভূমিকার সমালোচনাও করেন প্রধান বিচারপতি। তিনি
বলেন, আগে বার কাউন্সিল ভালো ভূমিকা নিয়েছিল। সুপ্রিম কোর্টের বিচারক নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রধান বিচারপতি শুধু ইঙ্গিত দিয়েছিল, এর পরে সেই প্রজ্ঞাপন পর্যন্ত বাতিল করতে বাধ্য হয়েছিল। কিন্তু আজকে তা কোথায়? নেই বার কাউন্সিল, নেই সুপ্রিম কোর্ট বার। ”

আইন পেশায় টিকিয়ে রাখার জন্য হলেও আইনজীবীদের সারা দেশের আদালতগুলো রক্ষা করার আহ্বান জানান বিচারপতি সিনহা।

তিনি বলেন, “প্রত্যন্ত অঞ্চলে কোর্ট বন্ধকালে কোর্টের খালি জায়গায় রাতারাতি বিল্ডিং উঠে গেল। প্রত্যেক জেলায় জেলায় এ অবস্থা। একটা জেলায় কোর্টের দুই একর জায়গা বার (আইনজীবী সমিতি) দখল করে নিয়েছে। এই কোর্ট যদি না থাকে, তাহলে কী রকম হয়? আমি শুধু আপনাদের কাছে এই দায়িত্ব দিয়ে দিলাম। ”

আইনজীবীদের আরও সমালোচনা করে বিচারপতি সিনহা বলেন, “আমরা বিচার করি। আপনাদের মতো বিজ্ঞ আইনজীবীরা আছেন, যারা আইনের ব্যাখ্যা উপস্থাপন করেন। অনেক দিন ধরে খেয়াল করছি। আজকে এ ধরনের ব্যাখ্যা দেওয়ার মতো খুব কম আইনজীবী পাই। ফলে আইনের ব্যাখ্যা ও সিদ্ধান্ত বিচারকরা নিজেরা লেখাপড়া করে দিই। ”

আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় প্রধান বিচারপতি রাষ্ট্রের ভূমিকা নিয়েও কথা বলেন। তিনি বলেন, “রাষ্ট্রের মরালিটি না থাকলে দেশে কোনো দিন শান্তি আসবে না। তাই প্রথমে রাষ্ট্রকে আইনের শাসন, শাসনতন্ত্র রাষ্ট্রকে বজায় রেখে, মেনে চলে এরপর জনগণকে আইন মেনে চলার কথা বলতে হবে। আমি আইনে চলব না, আর আমি যদি বলি আপনারা মানেন তাহলে সেই রাষ্ট্র কোনো মতে চলবে না। একদিন সব বিলীন হয়ে যাবে। ”

সংগঠনের সভাপতি এ কে এম ফয়েজের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক শেখ আলী আহমেদ খোকনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন বিচারপতি এ কে এম আব্দুল হাকিম, বিচারপতি নাইমা হায়দার, বিচারপতি এম আর হাসান, সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক বোরহান উদ্দিন খান, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক এস এম মুনীর।

 

 


মন্তব্য