kalerkantho


জ্বালানি সাশ্রয়ী শিল্পায়নে পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে যাচ্ছে সরকার : শিল্পমন্ত্রী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৮:৪৬



জ্বালানি সাশ্রয়ী শিল্পায়নে পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে যাচ্ছে সরকার : শিল্পমন্ত্রী

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, বর্তমান সরকার সব সময় পরিবেশ বান্ধব ও জ্বালানি সাশ্রয়ী শিল্পায়নে পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় শিল্প মন্ত্রণালয় শতভাগ দূষণ ও দুর্ঘটনামুক্ত শিল্প স্থাপনে সর্বোচ্চে অগ্রাধিকার দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

তাই জ্ঞানভিত্তিক ও শিল্পসমৃদ্ধ সমাজ বিনির্মাণে দেশি-বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়, গবেষণা প্রতিষ্ঠান এবং শিল্প-কারখানার মধ্যে কার্যকর সংযোগ স্থাপন করতে হবে।

আজ বুধবার রাজধানীর মিরপুরে এমআইএসটি মিলনায়তনে “যন্ত্র প্রকৌশল এবং ফলিত বিজ্ঞান বিষয়ক প্রথম আন্তর্জাতিক সম্মেলন (আইসিএমইএএস-২০১৭) উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মিলিটারি ইন্সটিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (এমআইএসটি) এবং বুয়েটের মেকানিক্যাল অনুষদ যৌথভাবে এ সম্মেলন আয়োজন করে।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার সবুজ শিল্পায়নের লক্ষ্যে পরিবেশ সুরক্ষায় কঠোর আইন প্রণয়ন করেছে। পাশাপাশি সবুজ অর্থনীতি ও সবুজ প্রবৃদ্ধির ধারণা জনপ্রিয় করতে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। দেশের শিল্প উদ্যোক্তারা যাতে সবুজ শিল্পায়নের প্রকৃত সুবিধা কাজে লাগাতে পারে, সে লক্ষ্যে সরকারের প্রয়াস অব্যাহত রয়েছে। পরিবেশ ও জ্বালানি চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সরকার জ্বালানি সাশ্রয়ী শিল্পায়নের প্রতি পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছে। তিনি এ সম্মেলন থেকে জ্ঞানভান্ডার সমৃদ্ধ করে জাতির উন্নয়নে নিজ নিজ মেধা ও সৃষ্টিশীলতা কাজে লাগাতে উপস্থিত প্রকৌশলীদের প্রতি আহবান জানান।

শ্রমঘন শিল্প হিসেবে শিপ রিসাইক্লিং কর্মসংস্থান ও আয় বৃদ্ধির মাধ্যমে জাতীয় অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, দেশের স্টিল ও রি-রোলিং কারখানাগুলোর অধিকাংশ কাঁচামাল এ শিল্পখাত থেকে আসছে।

ইতিমধ্যে শিপ রিসাইক্লিং শিল্পখাতে কর্মরত শ্রমিকদের কর্ম পরিবেশের উন্নয়নে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

আমু বলেন, বৈশ্বিক উষ্ণায়ন ও জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব থেকে পরিবেশ সুরক্ষায় বর্তমান সরকার সবুজ শিল্পায়নের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে। পরিবেশবান্ধব শিল্পায়নের সুফল পেতে সরকার উদ্যোক্তাদের মানসিকতা পরিবর্তনেও কাজ করে যাচ্ছে। সবুজ প্রবৃদ্ধি ও সবুজ অর্থনীতি গড়ে তোলার লক্ষ্য বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১১ সালে শিপ রিসাইক্লিংকে শিল্প হিসেবে ঘোষণা করেছেন। এর আলোকে শিল্প মন্ত্রণালয় নিরাপদ ও পরিবেশবান্ধব জাহাজ রিসাইক্লিং শিল্প প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, পরিবেশ ও শ্রম নিরাপত্তা ইস্যুতে বাংলাদেশের শিপ রিসাইক্লিং শিল্পের বিষয়ে বিতর্ক থাকলেও বর্তমানে এ খাতে উদাহরণ সৃষ্টি করার মতো শিল্প গড়ে ওঠেছে। এসব শিল্প দেশীয় ও আন্তর্জাতিক আইন-কানুন ও গুণগতমান অনুসরণ করছে। শিপ রিসাইক্লিং শিল্পখাতের স্বার্থে নিরাপদ ও পরিবেশবান্ধব জাহাজ রিসাইক্লিং প্রকল্প সম্প্রসারণের প্রতি সরকারের সমর্থন অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

এমআইএসটি’র কমান্ড্যান্ট মেজর জেনারেল মোঃ আবুল খায়ের এনডিসি’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য রাখেন মেকানিক্যাল অনুষদের ডিন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ড. মোঃ লুৎফর রহমান। এ ছাড়াও অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কানাডার অধ্যাপক স্টিফেন ডি. বাট। অনুষ্ঠানে তিন বাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, এমআইএসটি’র অনুষদ সদস্য ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।


মন্তব্য